বুধবার, ২১ অগাস্ট ২০১৯, ১০:৩০ অপরাহ্ন

অন্তত এ মাসে হালাল খাই

অন্তত এ মাসে হালাল খাই

নিউজটি শেয়ার করুন

ধর্ম ডেস্ক:ব্যবসায়ীরা নিত্যপণ্যের দাম বাড়িয়ে বড়লোক হওয়ার স্বপ্নে বিভোর হন রমজান এলেই। একজন মুসলমান ব্যবসায়ীর রমজানকেন্দ্রিক এমন প্রস্তুতি লজ্জার। কারণ পণ্য মজুদ করে দাম বাড়ালে সে ব্যবসায়ীর প্রতি আল্লাহতায়ালা ক্ষুব্ধ হন এবং তার সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করেন।

সঠিকভাবে ব্যবসা করলে দুনিয়ার রিজিকে বরকত পাওয়ার পাশাপাশি হাশরের ময়দানেও পুরস্কৃত হওয়া যাবে। তাকে করা হবে নবীদের সঙ্গী। রাসূল (সা.) বলেন, ‘সত্যবাদী ও বিশ্বস্ত ব্যবসায়ীদের হাশর হবে নবীগণ, সিদ্দিকগণ ও শহীদগণের সঙ্গে।’ [তিরমিজি : ৩/৫১৫]।

যাদের ওপর জাকাত ফরজ, তাদের আগে থেকেই রমজানকেন্দ্রিক জাকাতের পরিকল্পনা করে নেয়া উচিত। রমজানে ওমরাহর বিশেষ ফজিলত রয়েছে। রাসূল (সা.) বলেছেন, ‘রমজান মাসে একটি ওমরাহ আদায় করা একটি ফরজ হজ আদায় করার সমান।’ [বুখারি : ৩/২২২]। এ জন্য অর্থনৈতিকভাবে সামর্থ্যবানদের উচিত রমজানে ওমরাহের নিয়ত করে এর প্রস্তুতি নেয়া।

রমজানে সবচেয়ে বেশি দৃষ্টি রাখতে হবে হালাল রিজিকের প্রতি। আর এ জন্য প্রয়োজন হালাল উপার্জন করা। অন্তত একটি মাসে হালাল রিজিকের প্রতি যতœবান হোন। এ মাসে যে খাবারটা মুখে যাবে, তা হালাল হওয়া চাই। এমন যেন না হয় যে, রোজা তো রেখেছি আল্লাহর জন্য, কিন্তু ইফতার করছি হারাম দিয়ে। অনেক মানুষ আছেন, যাদের আয়ের উৎস মূলত হারাম নয়, কিন্তু যতœবান না হওয়ার কারণে হারামের সংমিশ্রণ হয়ে যায়। তাদের যত্নশীল হতে হবে।

আবার অনেক মানুষ আছেন, যাদের আয়ের উৎস পুরোটাই হারাম, তাদের জন্য হারাম থেকে বেঁচে থাকাটা খুবই কঠিন। তবে সম্ভব হলে তারা এক মাসের জন্য ছুটি নিয়ে নেবেন এবং অন্য কোনো হালাল পেশা গ্রহণ করবেন।

তা না হলে অন্তত কারও কাছ থেকে ঋণ নিয়ে হলেও নিজের এবং পরিবারের লোকদের জন্য রমজান মাসে হালাল রিজিকের ব্যবস্থা করুন। এটা রমজানের দাবি। আমরা কেউ চাই না দুর্ভাগা হিসেবে নিজেকে দেখতে। তাই আসুন রমজানে পবিত্র হই। হতে পারে রমজানের কল্যাণে চিরদিনের জন্য পবিত্র বনে গেলেন আপনি।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *







© All rights reserved © 2017 Nonditosylhet24.com
পোর্টাল বাস্তবায়নে : বিডি আইটি ফ্যাক্টরী লিঃ