মঙ্গলবার, ২২ অক্টোবর ২০১৯, ০৬:২১ অপরাহ্ন

আক্ষেপে পুড়ছেন মেয়র আরিফ 

আক্ষেপে পুড়ছেন মেয়র আরিফ 

নিউজটি শেয়ার করুন

শাহ মো তানভীর :: জনতার ভোটে সিলেট সিটি করপোরেশনের মেয়র নির্বাচিত হয়েছিলেন আরিফুল হক চৌধুরী।সে মেয়াদ এখন ফুরিয়ে যাওয়ার পথে। গতকাল মঙ্গলবার নির্বাচন কমিশনের তফসিল ঘোষণার সঙ্গে সঙ্গে সিলেটে ‘টক অব দ্য টাউন’ হয়ে উঠে সিটি নির্বাচন। ৩০শে জুলাই সিলেটবাসী আবার নতুন করে বেছে নেবেন নতুন নগরপিতা।তবে পাঁচ বছরের জন্য দায়িত্ব পেলেও প্রায় অর্ধেক সময়ই দায়িত্ব থেকে দূরে ছিলেন মেয়র আরিফ ।তাই নগরবাসীকে দেয়া অনেক প্রতিশ্রুতিই পূরণ করতে পারেননি তিনি তাই অনেকটা আক্ষেপে পুড়ছেন তিনি।

আরিফুল হক চৌধুরী  মনে করেন, জনতার রায়ে তাদের সেবা করার যে অধিকার তিনি পেয়েছিলেন, সেটা থেকে তিনি বঞ্চিত হয়েছেন। সময়ের অভাবে অনেক প্রতিশ্রুতিই পূরণ করতে পারেননি। নির্বাচনের দিনক্ষণ ঘোষণা তাই তার কাছে ‘অসময়ে’ই বলে মনে হচ্ছে।
তবে নির্বাচনের জন্য সব প্রস্তুতি নেওয়া আছে জানিয়ে আরিফুল হক চৌধুরী বলেন, এখন দল মনোনয়ন দিলে নির্বাচন করব।’ তিনি বলেন, ‘মেয়র নির্বাচিত হওয়ার পর আমি সাধ্যমতো চেষ্টা করেছি নগরবাসীর সেবা করার। তারা যে দায়িত্ব দিয়েছে তা যথাযথভাবে পালন করার। আমি মনে করি, তারা বিষয়টি বিবেচনা করবেন।’

মেয়র হিসেবে আরিফের পথচলা মোটেও সুখকর ছিল না। দায়িত্বগ্রহণের দেড় বছরের মাথায় থমকে যায় সে চলার পথ। ২০১৪ সালের শেষ দিকে সাবেক অর্থমন্ত্রী শাহ এএমএস কিবরিয়া হত্যা মামলার সম্পূরক চার্জশিটে অভিযুক্ত হিসেবে অন্তর্ভুক্ত হওয়ার পর ওই বছরের ৩০শে ডিসেম্বর হবিগঞ্জের আদালতে আত্মসমর্পণ করেন আরিফুল হক। যেতে হয় কারাগারে, হারাতে হয় মেয়র পদও।

মামলায় অভিযুক্ত হওয়ার কারণে ২০১৫ সালের ৭ই জানুয়ারি স্থানীয় সরকার বিভাগ তাকে সাময়িক বরখাস্ত করে। কারাগারে থাকা অবস্থায়ই আরিফুল হক অভিযুক্ত হন ১২ বছর আগে সংঘটিত আওয়ামী লীগ নেতা সুরঞ্জিত সেনগুপ্তের জনসভায় বোমা হামলা সংশ্লিষ্ট মামলায়ও। মামলাগুলো মাথায় নিয়েই দুই বছর কারাগারের ভেতরে কাটাতে হয় আরিফুল হককে। উচ্চ আদালত থেকে সবকটি মামলায় জামিন লাভের পরই ২০১৭ সালের ৪ঠা জানুয়ারি মুক্তির দুয়ার খুলে আরিফের জন্য। মুক্তি পাওয়ার পর বরখাস্তের সাময়িক আদেশ চ্যালেঞ্জ করলে হাইকোর্ট ওই বছরের ১৩ই মার্চ স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের আদেশটি ছয় মাসের জন্য স্থগিত করে দেন। রাষ্ট্রপক্ষ আপিলের পর স্থগিতাদেশটি টিকে যাওয়ায় ওই বছরের ৩০শে মার্চ নগরের দায়িত্ব নিয়েছিলেন আরিফুল হক। তবে সে দায়িত্বকালের মেয়াদ ছিল মাত্র তিন ঘণ্টা। স্থানীয় সরকার বিভাগ থেকে আবার বরখাস্তের চিঠি আসে আরিফুল হকের নামে। আবার পদ হারান, আবার আইনি লড়াইয়ে নামেন আরিফ। মাসখানেক আইনি লড়াই শেষে ২০১৭ সালের ৪ঠা মে আবার দায়িত্ব বুঝে নেন মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী।

 

 

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *







© All rights reserved © 2017 Nonditosylhet24.com
পোর্টাল বাস্তবায়নে : বিডি আইটি ফ্যাক্টরী লিঃ