রবিবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৮:৩৯ অপরাহ্ন

ইউপি সদস্যকে মেরে নাক ফাটালেন নারী সদস্যের স্বামী-সন্তান

ইউপি সদস্যকে মেরে নাক ফাটালেন নারী সদস্যের স্বামী-সন্তান

নিউজটি শেয়ার করুন

শাল্লা প্রতিনিধি: সুনামগঞ্জের শাল্লায় এক ইউপি সদস্যার স্বামী ও সন্তানদের হামলায় আহত হয়েছেন আরেক ইউপি সদস্য। গুরুতর জখম অবস্থায় আহত ইউপি সদস্যকে ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। রোববার বেলা ২টার দিকে বাহাড়া ইউনিয়ন পরিষদে এ ঘটনা ঘটে।

জানা যায়, বাহাড়া ইউনিয়ন পরিষদের ১নং ওয়ার্ডের সদস্য ব্রজলাল দাসের সঙ্গে বিজিএফ কার্ড একই ইউপির সংরক্ষিত ১নং ওয়ার্ডের নারী সদস্য আভা রানী দাসের স্বামী সীতেশ দাসের কথাকাটাকাটি হয়। একপর্যায়ে শীতেশ দাস মোবাইল করে তার দুই ছেলে সুজন দাস ও ঝুটন দাসকে ডেকে এনে পরিষদ ভবনে কর্মরত অবস্থায় ব্রজলাল দাসের উপর অতর্কিত হামলা চালায়। হামলায় তার নাক ফেটে যায়। শরীরেও জখম হয়। পরিষদের অন্য সদস্যরা ও আশেপাশের লোকজন তাকে আহত অবস্থায় উদ্ধার করে স্থানীয় হাসপাতালে ভর্তি করলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য এমএজি ওসমানী মেডিকেল হাসপাতালে প্রেরণ করেন।

হামলার ঘটনা স্বীকার করে বাহাড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান বিধান চন্দ্র চৌধুরী বলেন, পরিষদের ভেতরে ইউপি সদস্য ব্রজলাল দাসের উপর যে সন্ত্রাসী হামলা হয়েছে- সে বিষয়ে আইনি পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে। তিনি বলেন, পরিষদে জনপ্রতিনিধিদের নিরাপত্তা নেই, নিরাপত্তার স্বার্র্থে যা যা করার প্রয়োজন তাই করা হবে। ইতোমধ্যে আমরা মিটিংয়ের মাধ্যমে আভা রাণীকে তার স্বামী-সন্তানসহ পরিষদে আসতে বারণ করেছি।

হামলার দায় সত্যতা স্বীকার করে আভা রানীর ছেলে সুজন দাস জানান, তার বাবা (সীতেশ দাস) এর সাথে ব্রজলাল দাস খারাপ আচরণ করায় তারা এ ঘটনা ঘটিয়েছে।

এ ব্যাপারে আহত ব্রজলাল দাস বলেন, আভা রানীর নানা দুর্নীতির প্রতিবাদ করায় তার স্বামী ও ছেলেরা তার উপর এ হামলা করেছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *







© All rights reserved © 2017 Nonditosylhet24.com
পোর্টাল বাস্তবায়নে : বিডি আইটি ফ্যাক্টরী লিঃ