রবিবার, ২৫ অগাস্ট ২০১৯, ০৫:৪৫ অপরাহ্ন

ইলিয়াস আলীর বাসায় সাংবাদিকদের কাছে যা বললেন মির্জা ফখরুল

ইলিয়াস আলীর বাসায় সাংবাদিকদের কাছে যা বললেন মির্জা ফখরুল

নিউজটি শেয়ার করুন

নন্দিত ডেস্ক : বিরোধী পক্ষকে দমন করতে ক্ষমতাসীনরা ‘নতুন নতুন কৌশল’ উদ্ভাবন করছে বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ একের পর এক নির্যাতনের নতুন নতুন কৌশল উদ্ভাবন করছে বিরোধী পক্ষকে দমিয়ে দেয়ার জন্য।

আমরা যখন ইলিয়াস আলীর কথা মনে করি তখনই একজন প্রতিবাদী কণ্ঠস্বর, সাহসী মানুষের ছবি ভেসে ওঠে যিনি কখনো নতি স্বীকার করেননি। তাকে তারা (সরকার) সরিয়ে দিয়েছে। এই যে ভয়ের রাজত্ব সৃষ্টি করা, ভয়ের একটা ফোবিয়া তৈরি করা।

আজ বুধবার রাতে বনানীতে নিখোঁজ নেতা ইলিয়াস আলীর বাসায় সাংবাদিকদের কাছে এসব কথা বলেন মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

তিনি বলেন, ‘আমরা এই অবস্থার অবসান চাই। আমরা মনে করি, জনগণের ঐক্যবদ্ধ আন্দোলনের মধ্য দিয়ে এ ধরনের নির্যাতনকারী, নিপীড়নকারী সরকারের পতন হতে বাধ্য।’

২০১২ সালের ১৭ এপ্রিল বনানীর বাসা থেকে বের হওয়ার পরপরই মহাখালীর সাউথ পয়েন্ট স্কুলের সামনে থেকে ইলিয়াস আলী নিজের গাড়ি চালকসহ গুম হন। আজ সন্ধ্যায় বনানীতে ইলিয়াস আলীর বাসায় যান বিএনপি মহাসচিব। তিনি ইলিয়াস আলীর স্ত্রী তাহসিনা রুশদীর লুনা, বড় ছেলে আরবার ইলিয়াস ও ছোট মেয়ে সাইয়ারা নাওয়ালসহ পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে কথা বলেন এবং তাদের খোঁজখবর নেন।

এ সময়ে দলের চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা কাউন্সিলের সদস্য আমানউল্লাহ আমান, যুগ্ম মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, খায়রুল কবির খোকন, নির্বাহী সদস্য আয়েশা সিদ্দিকা মনি, চেয়ারপারসনের প্রেস উইংয়ের সদস্য শায়রুল কবির খান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। পরে মির্জা ফখরুল সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন।

সরকারের দমননীতিতে ক্ষোভ প্রকাশ করে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘গুমের ব্যাপারটা আমাদের কাছে খুব একটা পরিচিত ব্যাপার ছিল না। এনফোর্স ডিজঅ্যাপিয়ারেন্স- এটা আমরা বইয়ে পড়তাম, ল্যাটিন আমেরিকায় এসব ঘটনা ঘটত জানতাম। বাংলাদেশে এটা শুরু হলো এই সরকার আসার পর থেকেই, সেটা ২০১১-১২ সাল থেকে শুরু হয়েছে। এরপর আমরা জানি যে, আমাদের অনেক নেতাকর্মী, বিরোধী দলের নেতাকর্মী, ট্রেড ইউনিয়নের নেতা গুম হয়েছেন। এদের কোনো খোঁজ পাওয়া যায়নি।’

বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘এখনো অনেক গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি গুম হয়ে আছেন যেমন-ব্রিগেডিয়ার জেনারেল আজমী, একজন ব্যারিস্টারসহ অনেকেই। ২০১৩ সালের দিকে যখন আন্দোলন চরম পর্যায়ে সেই সময়ে একসঙ্গে অনেক ছাত্রনেতা গুম হয়েছেন। এর মধ্যে শাহিনবাগের মামুন, সুমন, মুন্নাসহ অনেকে। তাদের পরিবার আশা করে হয়তো তারা ফিরে আসবে কিন্তু এখনো ফিরে আসেনি। এ রকম একটা নজিরবিহীন পরিবেশ সৃষ্টি করেছে এ সরকার।’

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘জনগণের মধ্যে এই বোধ সৃষ্টি হয়েছে যে, আওয়ামী লীগ জনগণ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে, জনগণের সঙ্গে তাদের কোনো সম্পর্ক নেই। নির্যাতন-নিপীড়ন করেই তাদের ক্ষমতায় টিকে থাকতে হচ্ছে।’

বিএনপি মহাসচিব আরও বলেন, ‘আমরা এখনো আশা করি ইলিয়াস আলী আমাদের মাঝে, তার পরিবারের মাঝে ফিরে আসবে। তার ছোট্ট মেয়ে বাবা বলে ডাকতে পারবে। আমরা বিশ্বাস করি যারা নিখোঁজ হয়েছে, গুম হয়েছে তারা ফিরে আসবে।’

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *







© All rights reserved © 2017 Nonditosylhet24.com
পোর্টাল বাস্তবায়নে : বিডি আইটি ফ্যাক্টরী লিঃ