রবিবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০২:৩৫ অপরাহ্ন

কোরআন মুখস্ত করে চমকে দিলেন জকিগঞ্জের দৃষ্টিহীন কামরুল

কোরআন মুখস্ত করে চমকে দিলেন জকিগঞ্জের দৃষ্টিহীন কামরুল

নিউজটি শেয়ার করুন

জকিগঞ্জ প্রতিনিধি: একটি শিশু যখন ঘর আলোকিত করে পৃথিবীতে আসে তখন তার মা-বাবা, স্বজনের মুখে হাসি ফুটে, আনন্দের বন্যা বয়ে যায়। কিন্তু, সেই শিশু সন্তানটি যখন কোনভাবে বিকলাঙ্গ থাকে তখন সেই খুশি-হাসিতে ভাঁজ পড়ে। আর যদি হয় শিশুটি অন্ধ, তখন জন্মদাতা মা-বাবার পৃথিবীটাই অন্ধকার হয়ে যায়।

এমনই এক ‌’হতভাগা’ মা-বাবার জন্য চমক এনে দিয়েছেন জকিগঞ্জের কামরুল। জন্ম থেকেই চোখে দেখেন না। কিন্তু, সবার ভাবনা, দৃষ্টিকোণে পাল্টা আঘাত করলেন তিনি। চোখে না দেখলেও শোনে শোনে কোরআন মুখস্ত করে নিয়েছেন। অনেকেরই মুখে কলুপও পড়তে পারে। কারণ, দৃষ্টিহীন বলে যারা তাঁকে, কিংবা তাঁর মা-বাবাকে তুচ্ছ করেছেন তাদের যে সক্ষমতা হয়নি, সে কাজই করে দেখালেন তিনি।

২০০০ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি জকিগঞ্জ উপজেলার মানিকপুর ইউনিয়নের খলাদাপনিয়া গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন কামরুল ইসলাম চৌধুরী। তার বাবা সাব্বির আহমদ চৌধুরী ও মা রাজিয়া খানম। তিনি মা-বাবার তৃতীয় সন্তান।

জন্মের প্রথমদিকে বিষয়টি ততটা অনুভব করতে পারেননি মা-বাবা। পরবর্তীতে চিকিৎসকের স্মরণাপন্ন হলেও কোন উপায় হয়নি অর্থনৈতিক অনটনের কারণে

সন্তান দৃষ্টিহীন হলেও মেধার জোর দেখে পরিবারের সদস্যরা তাঁকে একটি হিফজ প্রতিষ্ঠানে পাঠিয়ে দেন। অবশেষে বাল্লাহ লতিফিয়া হাফিজিয়া মাদরাসা থেকে হিফজ সম্পন্ন করেন কামরুল। গত ৮ মার্চ তাকে স্বীকৃতিস্বরূপ পাগড়ী প্রদান করা হয়

সন্তানের এমন সাফল্যে গর্বিত কামরুলের মা-বাবা, বন্ধু-সহপাঠী, শিক্ষকরা। কামরুলের পিতা সাব্বির আহমদ চৌধুরী বলেন, আমার গর্বে বুক ভরে উঠছে। ছেলের চোখ না থাকায় অনেকে নানা কথা বলেছে। কামরুলকে নিয়ে সবসময় দুশ্চিন্তায় থাকতাম। এখন ছেলে আমাদের মুখ উজ্জল করেছে।
কামরুলের শিক্ষক-সহপাঠীরা জানান, দৃষ্টিশক্তি না থাকাসত্ত্বেও এমন সাফল্য সত্যিই গর্বের। কামরুল যা শোনে তা ভাল মনে রাখতে পারে। আল্লাহ তার চোখ দু’টি না দিলেও প্রখর মেধাশক্তি দিয়েছেন। আমরা তাঁর জন্য গর্বিত।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *







© All rights reserved © 2017 Nonditosylhet24.com
পোর্টাল বাস্তবায়নে : বিডি আইটি ফ্যাক্টরী লিঃ