বৃহস্পতিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১০:২৪ পূর্বাহ্ন

ক্র্যাক প্লাটুন’ বীরপ্রতীক গাজীর সাহসিকতা নিয়ে টেলিছবি

ক্র্যাক প্লাটুন’ বীরপ্রতীক গাজীর সাহসিকতা নিয়ে টেলিছবি

নিউজটি শেয়ার করুন

বিনোদন ডেস্ক:বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধে সাহসিকতার সঙ্গে অংশগ্রহণ করেছিলেন বীরপ্রতীক গোলাম দস্তগীর গাজী এমপি। মুক্তিযুদ্ধের ২ নম্বর সেক্টরে বিভিন্ন সম্মুখ যুদ্ধে বীরত্বের সাথে অংশগ্রহণ করেছেন। তিনি দুর্ধর্ষ ক্র্যাক প্লাটুনের সদস্য হিসেবে প্রশিক্ষন নেন এবং ঢাকার কয়েকটি সফল অপারেশনে অংশ নিয়েছিলেন। বীরপ্রতীক গোলাম দস্তগীর গাজী অপারেশনে সবসময় সামনে থাকতেন। তার সেই অসীম সাহসিকতার জন্য পেয়েছেন বীরপ্রতীক খেতাব।

এবার এই সাহসী মুক্তিযোদ্ধার যুদ্ধকালীন জীবনের ছায়া অবলম্বনে নির্মিত হয়েছে টেলিছবি ‌‌ক্র্যাক প্লাটুন। এটি পরিচালনা করেছেন আবু হায়াত মাহমুদ। লিখেছেন মাসুম শাহরিয়ার। আর গোলাম দস্তগীর গাজীর চরিত্রে অভিনয় করেছেন জনপ্রিয় অভিনেতা ওমর আয়াজ অনি।

দুই দশক আগে অভিনয় জগতে নিজের নাম লিখিয়েছিলেন অনি। মঞ্চ থেকে টেলিভিশন নাটক, তারপর চলচ্চিত্র। কিন্তু ‘ক্র্যাক প্লাটুন’ টেলিছবিতে অভিনয় করতে পেরে তিনি একটু বেশি উচ্ছ্বসিত। কারণ, বাস্তব কোন চরিত্রে তিনি প্রথমবারের মতো অভিনয় করলেন। সেজন্য তিনি টেলিছবিটির নির্দেশক, লেখক সহ সংশ্লিষ্ট সকলের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন।

অনি এ প্রসঙ্গে সারাবাংলাকে বলেন, ‘কোন বিখ্যাত ব্যক্তির চরিত্রে অভিনয় করতে গেলে তাকে নিয়ে অনেক বেশি গবেষণা করতে হয়। কিন্তু বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে সেটা সম্ভব হয়ে ওঠে না। সময় খুব কম পাওয়া যায়। তারপরও যখন আমি চরিত্রটি পেয়েছি তখন আমি আমার মতো করে প্রস্তুতি নিয়েছি। গাজী সাহেবের সঙ্গে দেখা করেছি। তাঁর মুখ থেকে সেই সময়ের অভিজ্ঞতা শুনেছি। খুঁটিয়ে খুঁটিয়ে তাঁর যুদ্ধকালীন সময়ের কথা জেনেছি। তিনি আমাকে অনেক সাহায্য করেছেন।’

শুটিংয়ের অভিজ্ঞতা সম্পর্কে অনি বলেন, ‘এই টেলিছবির শুটিংয়ের অভিজ্ঞতা অসাধারণ। পাঁচ-ছয়টি লোকেশনে কাজ করেছি। পাহাড়-পর্বত ডিঙানো থেকে শুরু করে অনেক কিছু করতে হয়েছে। ক্র্যাক প্লাটুন বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের বড় অংশ জুড়ে রয়েছে। তবুও এটা নিয়ে খুব বেশি কাজ হয়নি। ‘আগুনের পরশমনি’, ‘গেরিলা’ ছবিতে কিছুটা দেখানো হয়েছিল। এই টেলিছবিতে পূর্ণাঙ্গভাবে সেটা দেখানো হয়েছে।’

যুদ্ধের সময় ঢাকা শহর যখন পাকিস্তান সামরিক বাহিনীর দখলে তখন বিদেশে কথাবার্তা হচ্ছিল যে, বাংলাদেশে মুক্তিযুদ্ধ বলে কিছু হচ্ছে না। সেসময় বিদেশীদের জানান দেয়ার দরকার ছিল যে, বাংলাদেশে ভয়ানক যুদ্ধ হচ্ছে। জানানোর জন্য একটি গেরিলা দলকে ঢাকায় পাঠানো হয়। তাদের বলা হয়েছিল ঢাকা শহরের বিভিন্ন জায়গায় বোম্বিং করতে। ওই মুহূর্তে ইন্টারকন্টিনেন্টাল হোটেলে জাতিসংঘের একদল প্রতিনিধি দল অবস্থান করছিল। তখন ক্র্যাক প্লাটুনের একটি দল হোটেলটির ভিতরে গিয়ে গ্রেনেড মেরে আসে। বিদেশীরাও কয়েকজন আহত হয়। ২ নম্বর সেক্টরের গেরিলা দলটির কমান্ডার ছিলেন খালেদ মোশাররফ। তিনি খবরটি শুনতে পেয়ে বলেছিলেন, ওরা ক্র্যাক নাকি? কারণ তাদের ঢাকা শহরের আশেপাশে বোম্বিং করতে বলা হয়েছিল। সেই থেকে ‘ক্র্যাক প্ল্যাটুন’ শব্দের উৎপত্তি। এই সত্য ঘটনাকে টেলিছবিতে তুলে ধরা হয়েছে।

এদিকে ক্র্যাক প্লাটুন সম্পর্কে মানুষের জানা উচিত মনে করেন টেলিছবির পরিচালক আবু হায়াত মাহমুদ। সেরকারণে তিনি কাজটা আগ্রহের সঙ্গে, নিজের ভেতর একটি চ্যালেঞ্জ নিয়ে করেছেন। আবু হায়াত সারাবাংলাকে বলেন, ‘টেলিছবিটি গাজী গোলাম দস্তগীর সাহেবের সম্পূর্ণ বায়োপিক বলা যাবেনা। তবে মুক্তিযুদ্ধের সময় তার অসীম সাহসিকতার ছায়া অবলম্বনে টেলছিবিটি নির্মাণ করেছি। বায়োপিকে যে বিশাল আয়োজন, আর বিস্তারিত থাকে এই টেলিছবিতে তা দেখানো যায়নি। কিছু সীমাবদ্ধতা ছিল। তারপরও আমি চেষ্টা করেছি অল্পের ভেতর তাকে সুন্দরভাবে উপস্থাপন করতে।’

টেলিছবিতে সুমন আনোয়ার, তিনু করিম, সুজাত শিমুল, শাহ আলম দুলাল, মুকুল সিরাজসহ আরও অনেকে অভিনয় করেছেন। ১৬ ডিসেম্বর মহান বিজয় দিবসে জিটিভিতে সন্ধ্যা ৭টা ৪৫ মিনিটে ক্র্যাক প্লাটুন টেলিছবিটি প্রচার হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *







© All rights reserved © 2017 Nonditosylhet24.com
পোর্টাল বাস্তবায়নে : বিডি আইটি ফ্যাক্টরী লিঃ