বুধবার, ২১ অগাস্ট ২০১৯, ১১:২০ পূর্বাহ্ন

গোলাপগঞ্জে জমজমাট ঈদবাজার: খুশমেজাজি ব্যবসায়ীরা

গোলাপগঞ্জে জমজমাট ঈদবাজার: খুশমেজাজি ব্যবসায়ীরা

নিউজটি শেয়ার করুন

নিজস্ব প্রতিবেদক: গোলাপগঞ্জে জমে উঠেছে ঈদ বাজার। উপজেলার ছোট বড় সকল বাজারে এখন ঈদ উল ফিতর উপলক্ষে কম বেশী কেনাকাটা শুরু হয়েছে। উপজেলার ব্যবসা প্রাণকেন্দ্র হিসেবে পরিচিত ঢাকা দক্ষিণবাজার, গোলাপগঞ্জ উপজেলা সদর বাজার, হেতিমগঞ্জ বাজার, ভাদেশ্বর বাজার, আছিরগঞ্জ বাজার, বাঘার বাজার, বুধবারী বাজারসহ প্রত্যেকটি বাজারে পোষাকের ক্রেতাদের সরব উপস্থিতি লক্ষ করা গেছে।

বর্ণিল সাজে সাজানো হয়েছে বিপনী বিতানগুলো। বৃহস্পতিবার উপজেলার বিভিন্ন বাজার ঘুরে ক্রেতা ও বিক্রেতাদের সাথে কথা হলে এবারের ঈদ বাজার নিয়ে উভয়ের মধ্যে খুশির ভাব বিরাজ করতে দেখা গেছে। ঈদ যত ঘনিয়ে আসছে বিপণী বিতান সমূহে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে ক্রেতাদের ভিড়। কেউ এসেছেন বন্ধুবান্ধবদের নিয়ে আবার কেউ পরিবারের সদস্যদের নিয়ে কেনাকাটা করছেন নিজের পছন্দের সেরা পোশাক। ঈদের বাকি মাত্র কয়েকদিন।

ঈদ ঘনিয়ে আসার সাথে সাথে ক্রেতাদের উপচে পড়া ভিড়ে গোলাপগঞ্জে জমে উঠেছে ঈদ বাজার। ক্রেতাদের মনোরঞ্জন করতে অভিজাত বিপণী বিতানগুলো সাজানো হয়েছে বর্ণিল সাজে। ঈদ মানে নতুন পোশাক, আর সেই পোশাকের চাহিদা মেটাতে ক্রেতাদের পদচারণায় সরগরম দেখা যায় গোলাপগঞ্জের বিভিন্ন ফ্যাশন হাউজ ও শাড়ি-চুড়ির দোকানে। উপজেলার বিভিন্ন বাজারে ফুটপাত থেকে শুরু করে অভিজাত শপিংমল পর্যন্ত সর্বত্র সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত চলছে পুরোদমে কেনাকাটা। প্রতিটি মার্কেটে শতশত ক্রেতার ভিড়ে এখন দম ফেলার সময় পাচ্ছেনা না বিক্রেতারা।

ঈদ বাজারের অন্যতম অনুষঙ্গ বিপনী বিতান সমূহে ক্রেতা সমাগম চোখে পড়ার মত। কাপড়ের পাশাপাশি কসমেটিক্স ও জুতার দোকানেও রয়েছে ক্রেতাদের প্রভাব। নিজেদের পছন্দমত কেনাকাটা করতে মহাব্যস্ত সময় অতিবাহিত করছেন তারা। গোলাপগঞ্জ বাজারের ব্যবসায়ী রঙবাহার দোকানের স্বত্ত্বাধিকারী রেকন আহমদ জানান, অন্যান্য বছরের তুলনায় এবার বিক্রি ভাল। সামনের দিনগুলোতে আরও বেশি বিক্রি হবে বলে মনে করেন তিনি। বোটিকা পাঞ্জাবী এর স্বত্ত্বাধীকারী সুবল দেব জানান, মনিপুরি কাপড়ের চাহিদা ঈদের বাজারে সবার নজর কাড়ছে। নতুন ডিজাইনের কাপড়ের পাশাপাশি মনিপুরি কাপড়েও ক্রেতাদের আকর্ষণ রয়েছে। ঢাকাদক্ষিণ স্কুল মার্কেটের এমাদ বস্ত্র বিতানের স্বত্বাধীকারী লুৎফুর রহমান বলেন, ঈদের বাজারের প্রকৃত আমেজ লক্ষ্য করছি। গতবারের তুলনায় একটু দেরিতে ঈদের বাজার জমে উঠলেও বর্তমানে বেচাকেনা বেশ ভাল।

এদিকে ব্যবসায়ীরা ঈদের বাজারকে সরগরম করতে দোকানকে বর্ণিল সাজে সজ্জিত করে রেখেছেন ব্যবসায় প্রতিষ্ঠান সমূহ। অনেক ব্যবসায়ী বিশেষ মূল্য ছাড় দিয়ে ক্রেতাদের নজরকাড়তে দেখা যায়। উপজেলার পৌর সদরের বিভিন্ন শপিংমল এ ওয়াহাব প্লাজা, আল মারওয়া শপিং সেন্টার, নূর ম্যানশন, হাজী আসিদ আলী কমপ্লেক্স, উপজেলার প্রাণকেন্দ্র ঢাকাদক্ষিণ বাজারের স্কুল মার্কেট, বকুল ম্যানশন, মদিনা মার্কেট ঘুরে ক্রেতাদের উপচে পড়া ভিড় দেখা যায়।

ক্রেতাদের আকর্ষণ করতে এসব মার্কেটে নারী, পুরুষ ও শিশুদের রকমারী ডিজাইনের রকমারি পোশাক এনে ডিসপ্লে করে রেখেছেন বিক্রেতারা। পৌর সদর ওহাব প্লাজায় পোষাক কিনতে আসা ক্রেতা ঢাকাদক্ষিণ হলিসিটি স্কুলের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ সাবিনা বেগমের সাথে কথা হয়। তিনি বলেন এবার পোষাকের মুল্য সহনীয় মাত্রায় রয়েছে। নতুন নতুন পোষাকের সমাহার রয়েছে বলে তিনি জানান। ঢাকাদক্ষিণ স্কুল মার্কেটে ফ্যাসন সেন্টারে কথা হয় সাংবাদিক সুলতার আবু নাছেরের সাথে। তিনি জানান এবার ঈদ মার্কেটে ভাল লাগছে। ক্রয় ক্ষমতার মধ্যে রয়েছে সব ধরনের পোষাক।

এছাড়াও জেন্টস দোকান সমূহে ব্যবসায়ীরা শার্ট, প্যান্ট’র পাশাপাশি পসরা সাজিয়েছেন রঙ বে-রঙয়ের পাঞ্জাবী দিয়ে। ক্রেতাদের আকর্ষণ করতে প্রতিবছরের ন্যায় এবছরও মেয়েদের জন্য বিভিন্ন নামীয় পোশাকের সমাহার রয়েছে। এবছর ফণী, টিক-টক, কিরাণী, মুতিমালা, চিনিরগুড়া ইত্যাদি বেশ উল্লেখযোগ্য পোশাক। এছাড়াও গতবছরের বেশ জনপ্রিয় অপরাধী, পদ্মাবতী, সামপুরা, ইস্তা, লং কোটি, ওয়াইফাই, ক্যাকটাস, থ্রি ডি পোশাকও ক্রেতাদের নজর কাড়ছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *







© All rights reserved © 2017 Nonditosylhet24.com
পোর্টাল বাস্তবায়নে : বিডি আইটি ফ্যাক্টরী লিঃ