বৃহস্পতিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১১:১৫ পূর্বাহ্ন

ড. মোমেন পক্ষে প্রচারের জন্য সিলেট এসেছেন দু’শতাধিক প্রবাসী

ড. মোমেন পক্ষে প্রচারের জন্য সিলেট এসেছেন দু’শতাধিক প্রবাসী

নিউজটি শেয়ার করুন

নন্দিত ডেস্ক: একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে নির্বাচনী প্রচারে অংশগ্রহণের লক্ষ্যে দু’শতাধিক প্রবাসী সিলেটে এসেছেন।

সিলেট-১ আসনে আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন মহাজোট মনোনীত প্রার্থী, সাবেক রাষ্ট্রদূত, বিশিষ্ট অর্থনীতিবিদ ও কূটনীতিবিদ ড. এ.কে আব্দুল মোমেনসহ সিলেট অঞ্চলের মহাজোটের অন্যান্য প্রার্থীর পক্ষে নির্বাচনী প্রচারে অংশ নিতে দেশে এসেছেন তারা।

জীবন-জীবিকার টানে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে অবস্থানরত প্রবাসীরা সব সময়ই মাতৃভূমির কল্যাণে এগিয়ে আসেন। প্রবাসে থেকেও তারা দেশের রাজনীতি ও সামাজিক কর্মকান্ডে বিভিন্ন সংগঠনের ব্যানারে ঐক্যবদ্ধ প্রবাসীরা সর্বদা সম্পৃক্ত ও সোচ্চার থাকেন। মহান মুক্তিযুদ্ধসহ দেশের ঐতিহাসিক সকল অর্জনেই প্রবাসীরা বিশেষ অবদান রেখেছেন।

তারা সবসময়ই দেশের উন্নয়ন, শান্তি ও কল্যাণ এবং বিশ্বদরবারে বাংলাদেশের সুনাম ও মর্যাদা বৃদ্ধির প্রত্যাশা করেন। এমনটাই বুকে লালন করে সবসময় সোচ্চার থাকেন প্রবাসীরা।

এবারের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন মহাজোট মনোনীত প্রার্থীদের পক্ষে কাজ করতে যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য ও মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন দেশ থেকে বিগত কয়েক দিনে সিলেটে এসেছেন দু’শতাধিক প্রবাসী।

সিলেট-১ আসনে মহাজোট মনোনীত প্রার্থী ড. এ.কে আব্দুল মোমেন মধ্যপ্রাচ্য, যুক্তরাষ্ট্রসহ ইউরোপের বিভিন্ন দেশে রাষ্ট্রদূত ও জাতিসংঘের প্রতিনিধি হয়ে দীর্ঘদিন কাজ করার সুবাদে প্রবাসীদের কল্যাণে বিশেষ অবদান রেখেছেন। ফলে বিভিন্ন দেশে অবস্থানরত বাংলাদেশী প্রবাসীদের সাথে ড. মোমেনের সুসম্পর্ক গড়ে ওঠে। বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনার আহবানে রাজনৈতিক কারণে নিউইয়র্কে টানা ৬ বছর জাতিসংঘের স্থায়ী প্রতিনিধি ও রাষ্ট্রদূতের দায়িত্ব পালন শেষে দেশে ফেরেন। এর পর যুক্তরাষ্ট্রে অবস্থানরত বাংলাদেশেী প্রবাসীরা ড. মোমেনকে সমর্থন ও সহযোগিতা প্রদানের লক্ষ্যে গঠন করেন ‘ড. মোমেন সমর্থক ফোরাম, যুক্তরাষ্ট্র’।

বৃহস্পতিবার ড. মোমেন সমর্থক ফোরাম, যুক্তরাষ্ট্রের নেতা, যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আইরিন পারভীন, বাংলাদেশ সোসাইটি যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক সাধারণ সম্পাদক রানা ফেরদৌস চৌধুরী, যুক্তরাষ্ট্র যুবলীগের আহবায়ক শেখ জামাল হোসাইন, যুগ্ম আহবায়ক ইফজাল আহমদ চৌধুরীসহ বিভিন্ন গ্রুপে অর্ধশতাধিক যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী সিলেটে পৌঁছেছেন। আরো অনেকেই দেশে আসছেন নির্বাচনের আগে। এছাড়া যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ সাজিদুর রহমান ফারুক, লন্ডন আওয়ামী লীগের সভাপতি নুরুল হক লালা মিয়া, সহসভাপতি শফিক আহমদ, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আনোয়ারুজ্জামান চৌধুরী, যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগ নেতা খসরুজ্জামান খসরু, কাওছার আহমদ চৌধুরী, মনছুর আহমদ মকি, মিসবাউর রহমান মিসবাহ, যুক্তরাজ্য যুবলীগ সহসভাপতি নাজমুল ইসলাম, আলমাছ খান আজাদ, লন্ডন মহানগর যুবলীগ সভাপতি তারেক আহমদ, সাংগঠনিক সম্পাদক হাফিজুর রহমান বাবলু, যুক্তরাজ্য স্বেচ্ছাসেবকলীগের যুগ্ম সম্পাদক ফরহাদ আহমদ, সাংগঠনিক সম্পাদক মতছির আহমদ চৌধুরী জনি, যুক্তরাজ্য ছাত্রলীগের সভাপতি তানিম আহমদ, ফ্রান্স আওয়ামী লীগ নেতা আজমল হোসেনসহ শতাধিক প্রবাসী, সামাজিক ও রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব ইতোমধ্যে দেশে এসেছেন।

এছাড়াও বাহরাইন, সৌদি আরবসহ মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন দেশ থেকে অর্ধশতাধিক প্রবাসী দেশে এসেছেন মহাজোট মনোনীত প্রার্থীদের পক্ষে প্রচারকাজে অংশ নিতে।

এ ব্যাপারে আলাপকালে যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক আনোয়ারুজ্জামান চৌধুরী বলেন, আগামী ৩০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিতব্য জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে যুক্তরাজ্য থেকে আমরা শতাধিক প্রবাসী নেতাকর্মী দেশে এসেছি। সিলেট অঞ্চলের বিভিন্ন আসনে মহাজোট মনোনীত প্রার্থীদের পক্ষে প্রচারকাজে অংশ নিচ্ছি। দেশের নির্বাচনী উৎসবে অংশ নিতে মাতৃভূমির টানে সুদূর প্রবাস থেকে আমরা দেশে এসেছি। আমরা প্রবাসীরা দেশ ও জাতির শান্তি, উন্নয়ন ও সমৃদ্ধি চাই। বহির্বিশ্বে বাংলাদেশকে মর্যাদাপূর্ণ আসনে দেখতে চাই।

তিনি বলেন, বিএনপি-জামাতের শাসনামলে রাষ্ট্রীয় মদদে সন্ত্রাস, বোমাবাজি, জঙ্গিবাদি তৎপরতার মাধ্যমে বিশ্বে বাংলাদেশকে সন্ত্রাস ও দুর্নীতিগ্রস্থ রাষ্ট্র হিসেবে পরিচিত করেছিল। পুণ্যভূমি সিলেটের মাটিতে হযরত শাহজালাল (রহ.) মাজারে বাংলাদেশে সাবেক ব্রিটিশ হাইকমিশনার আনোয়ার চৌধুরীর উপর গ্রেনেড হামলা চালানো হয়েছিল। ফলে বাংলাদেশি প্রবাসীরা বিভিন্ন দেশে কালো তালিকাভুক্ত হয়েছেন। অনেক হয়েছেন চাকরিচ্যুতও। পরবর্তিতে জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন সরকার প্রতিষ্ঠা হওয়ার পর বিগত ১০ বছরে সকল কলঙ্ক মোচন করে বহির্বিশ্বে বাংলাদেশকে মর্যাদাপূর্ণ রাষ্ট্রে পরিণত হয়েছে। প্রবাসে বাংলাদেশিদের মুখ উজ্জল হয়েছে। আমরা এ সরকারের ধারাবাহিকতা চাই। দেশের উন্নয়ন ও শান্তি চাই। তাই আগামী নির্বাচনে সিলেট-১ আসনসহ সিলেট বিভাগের মহাজোট প্রার্থীদের বিজয়ী করার জন্য প্রবাসীদের পক্ষ থেকে দেশবাসীর প্রতি বিশেষভাবে আহবান জানাচ্ছি।

যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী কমিউনিটি তরুণ সংগঠক ড. মোমেন সমর্থক ফোরাম, যুক্তরাষ্ট্র’র অন্যতম সদস্য ইফজাল আহমদ চৌধুরী বলেন, যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসীদের পরম বন্ধু ড. এ.কে আব্দুল মোমেন। তিনি যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসীসহ বিভিন্ন দেশে অবস্থানরত প্রবাসীদের স্বার্থ রক্ষায় সদা জাগ্রত। আমরা অনেক যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী দেশে এসেছি এবং আরো অনেকেই আসছেন। বিশেষ করে প্রবাসীদের প্রতি ড. মোমেনের ভালোবাসার প্রতিদান দিতে। আমরা যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী বাংলাদেশিদের পক্ষ থেকে সিলেটবাসীর কাছে আবেদন জানাচ্ছি- ড. এ.কে আব্দুল মোমেনের মতো একজন খাঁটি দেশপ্রেমিক ও আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন ব্যক্তিকে ভোট দিয়ে বিজয়ী করার জন্য। এতে আন্তর্জাতিক বিশ্বে সিলেটসহ বাংলাদেশের মুখ আরো উজ্জল হবে।

বাহরাইন প্রবাসী বাংলাদেশিদের সংগঠক, বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন বাহরাইন শাখার সভাপতি মোহাম্মদ কায়েস আহমদ বলেন, আমাদের চাওয়া-পাওয়ার কিছু নেই। আমি আমার সহকর্মীদেরকে নিয়ে দেশে এসেছি আমাদের স্বজন ড. এ.কে মোমেন ও নৌকার পক্ষে কাজ করার জন্য। তিনি প্রবাসীদের কল্যাণে একজন নিবেদিতপ্রাণ ব্যক্তি। আমরা তার বিজয়ের মাধ্যমে প্রবাসীদের বিজয় দেখতে চাই। আমি আশাকরি সিলেটবাসী আগামী নির্বাচনে ড. মোমেনকে নৌকা প্রতীকের পক্ষে ভোট দিয়ে বিজয়ী করবেন। আমরা সেই বিজয়ের প্রত্যাশী।

সৌদি আরব প্রবাসী কমিউনিটি নেতা, বৃহত্তর সিলেট আওয়ামী পরিবারের যুগ্ম আহবায়ক ফখরুল ইসলাম বলেন, আমরা অনেক সৌদি প্রবাসী নির্বাচনী প্রচারে অংশ নিতে দেশে এসেছি। সিলেট-১ আসনে মহাজোট মনোনীত প্রার্থী ড. এ.কে আব্দুল মোমেন প্রবাসীদের প্রিয় মানুষ। তিনি সৌদি সরকারের অর্থ ও পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের অধীনে ইকোনোমিক এডভাইজার হিসেবে কাজ করেছেন। এ কাজে নিযুক্ত থাকাকালে সৌদি সরকারের সাথে আলোচনার মাধ্যমে তিনি মধ্যপ্রাচ্যে বাংলাদেশী শ্রমিকদের ওপর নানাভাবে অমানবিক নির্যাতন বন্ধসহ প্রবাসী বাংলাদেশিদের উপযুক্ত মজুরি প্রদান, কাজের পরিবেশ, শ্রমিক পরিবহনের অব্যবস্থার বিরোধীতা করে এ বিষয়ে প্রবাসী বাংলাদেশিদের সুবিধা নিশ্চিত করেন। তাঁর এ প্রচেষ্টায় সৌদি প্রবাসী শ্রমিকরা তাদের ন্যায্য মজুরিসহ সুবিধা পাওয়ার জন্য ওয়াল্ড ট্রেড অর্গানাইজেশন (WTO) -এর কাছে সবিচার দাবি করার অধিকার অর্জন করেন। এছাড়াও ড. মোমেন সৌদি আরবে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত হিসেবে কাজ করার সুবাদে সৌদি প্রবাসী বাংলাদেশিদের সুখে-দুঃখে পাশে থেকে প্রবাসীদের কল্যাণে অবদান রেখেছেন। এজন্য আমরা সৌদি প্রবাসীরা তাঁর কাছে বিশেষ কৃতজ্ঞ। আমরা তাঁর পক্ষে কাজ করতে এসেছি। আমরা সৌদি আরব প্রবাসীরা আশাকরি যে, আগামী ৩০ ডিসেম্বর জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সিলেটের মানুষ কীর্তিমান এ ব্যক্তিকে বিজয়ী করে সিলেটের মুখকে আরো উজ্জল করবেন।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *







© All rights reserved © 2017 Nonditosylhet24.com
পোর্টাল বাস্তবায়নে : বিডি আইটি ফ্যাক্টরী লিঃ