মঙ্গলবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০১:০৬ অপরাহ্ন

ত্যাগী নেতার তালিকায় নেই আ.ন.ম শফিক, সমালোচনার মুখে সিলেট আ.লীগ 

ত্যাগী নেতার তালিকায় নেই আ.ন.ম শফিক, সমালোচনার মুখে সিলেট আ.লীগ 

নিউজটি শেয়ার করুন

নিজস্ব প্রতিবেদক : ব্যাপক সমালোচনার মুখে পড়েছে সিলেট জেলা আওয়ামী লীগ। কেন্দ্র নির্দেশিত দলীয় ত্যাগী নেতাদের নাম প্রস্তাব নিয়ে এই সমালোচনার সৃষ্টি হয়েছে। এই নিয়ে ক্ষোভের অন্ত নেই তৃণমূল নেতাকর্মীদের। সেই সাথে বিক্ষুব্ধ নেতাকর্মীরা প্রস্তাবিত ৪ নেতার মধ্যে আ.ন. ম শফিকুল হকের নাম অন্তর্ভুক্তির জন্য জোরালো দাবি জানান।

জানাগেছে, দলের ৭০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষ্যে দলীয় ত্যাগী নেতাদের সংবর্ধনা প্রদানের উদ্যোগ গ্রহণ করেছে আওয়ামী লীগ। এরই অংশ হিসেবে সারাদেশে জেলা ও মহানগরে ত্যাগী দুইজন নেতাকে সংবর্ধনা প্রদান করবে আওয়ামী লীগ। সেই অনুযায়ী দলের প্রতিটি জেলা ও মহানগরের তালিকা পাঠাতে নির্দেশ দেয় কেন্দ্র। কেন্দ্রের নির্দেশনার পর পরই দলীয় প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীকে কেন্দ্র করে বৈঠক করে সিলেট জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগ। পৃথক পৃথক বৈঠকে জেলা ও মহানগর থেকে দুইজন করে মোট ৪ জন নেতার নাম কেন্দ্রে পাঠানোর প্রস্তাব গ্রহণ করা হয়।

জেলা ও মহানগরের প্রস্তাবিত ৪ নেতার নাম হলো যথাক্রমে দলের কেন্দ্রীয় উপদেষ্টামন্ডলীর সদস্য ও জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি এডভোকেট সৈয়দ আবু নছর ও জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট শাহ মোদাব্বির আলী, মহানগর শাখা থেকে নগর আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি সিরাজ বক্স ও সদস্য আকবর আলী।

প্রস্তাবিত ৪ নেতার নাম তাৎক্ষণিক ভাবে কেন্দ্রে পাঠানো হয়েছে বলে সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশিত বিবৃতিতে বিষয়টি নিশ্চিত করেন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শফিকুর রহমান চৌধুরী। সভায় উপস্থিত থাকা জেলা আওয়ামী লীগের ক্রীড়া ও সংস্কৃতি সম্পাদক রনজিত সরকার এসময় দলের দু:সময়ে ত্যাগী নেতা হিসেবে আ.ন.ম শফিকের নামও প্রস্তাব করেন। প্রস্তাবটি সাথে সাথে সমর্থন করেন জেলা আওয়ামী লীগের নাম প্রকাশ করতে অনিচ্ছুক এক গুরুত্বপূর্ণ নেতা। সমর্থনের বিষয়ে সত্যতা জানতে চাইলে সে বিষয়টি তিনি নিশ্চিত করেন। তবে, এ বিষয়ে কোনো কথা বলতে রাজী হননি তিনি।

এদিকে কেন্দ্রে পাঠানো ৪ নেতার মধ্যে আ.ন.ম শফিকুল হকের নাম না থাকায় খেদোক্তি প্রকাশ করেছেন তৃণমূলের কর্মীরা। তাদের মতে দলের দু:সময়েও নেতাকর্মীদের পাশে যিনি দাঁড়িয়েছিলেন ছায়ার মতো-তিনি আ. ন. ম শফিকুল হক। রাজনৈতিক জীবনে আ .ন. ম শফিকুল হককে আপোষহীন উল্লেখ করে বিক্ষুব্ধ ওই নেতাকর্মীরা বলেন, রাজনীতিকে ব্যবসায়ীক হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার না করে কর্মীবান্ধব এই নেতা এখনও তৃণমূল পর্যায়ে সকলের কাছে সমাদৃত। দল সরকারে থাকা অবস্থায়ও যিনি কোনো সুবিধা গ্রহণ করেননি।

ওই নেতারা মনে করেন, বর্তমানে চিকিৎসাধীন থাকা আ.ন.ম শফিকুল হক আর্থিকভাবেও এখন ঝুঁকিপূর্ণ। নেতার চিকিৎসার্থে পরিবারের সম্বল বলতে যা ছিলো- তাও শেষ হয়ে গেছে। বর্তমানে উন্নত চিকিৎসা গ্রহণে চিকিৎসাব্যয় মিটাতে অপারগ আ. ন. ম শফিকের পরিবার। এই অবস্থায় জীবন মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে থাকা জেলার এক সময়কার প্রভাবশালী এই নেতার পাশে দাঁড়ান দলীয় সভানেত্রী। তিনি ব্যক্তিগত তহবিল থেকে আ.ন.ম শফিকুল হকের চিকিৎসার্থে ৫ লাখ টাকার আর্থিক অনুদান তুলে দেন। তাঁরা প্রধানমন্ত্রীর সম্মাান জানানো এই নেতার নাম কেন্দ্রে পাঠনোর জন্য জোর দাবি জানান।

এ ব্যাপারে জেলা ক্রীড়া ও সংস্কৃতি বিষয়ক সম্পাদক এডভোকেট রনজিত সরকারের মন্তব্য জানতে চাইলে-তিনি বলেন নাম প্রস্তাবের বিষয়টি মিটিং পর্যন্তই সীমাবদ্ধ। এ ব্যাপারে আর কিছু বলার ইচ্ছে আমার নেই।

জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি (ভারপ্রাপ্ত) এডভোকেট লুৎফুর রহমানের মোবাইল ফোনে একাধিকবার ফোন দেওয়া হলেও তিনি ফোন রিসিভ না করায় মন্তব্য নেওয়া যায়নি।

জেলা সাধারণ সম্পাদক শফিকুর রহমান চৌধুরী এ বিষয়ে বলেন, জেলা কমিটির মিটিং থেকে উপস্থিত সদস্যদের সর্ব সম্মাতিক্রমে ও জেষ্ঠতার ভিত্তিতে দুইজন প্রবীণ নেতার নাম উল্লেখ করা হয়েছে। তিনি বলেন, উপস্থিত নেতাকর্মীদের আলোচনার মাধ্যমেই প্রবীন নেতা ও জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি এডভোকেট আবু নছর ও সাবেক জেলা সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট শাহ মোদাব্বির আলীর নাম কেন্দ্রে পাঠানোর সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *







© All rights reserved © 2017 Nonditosylhet24.com
পোর্টাল বাস্তবায়নে : বিডি আইটি ফ্যাক্টরী লিঃ