মঙ্গলবার, ১৫ অক্টোবর ২০১৯, ০৩:০০ অপরাহ্ন

পরিকল্পনা মন্ত্রীকে সিলেট প্রেসক্লাবের সংবর্ধনা

পরিকল্পনা মন্ত্রীকে সিলেট প্রেসক্লাবের সংবর্ধনা

নিউজটি শেয়ার করুন

নন্দিত সিলেট :: জনবান্ধব আমলা থেকে সফল রাজনীতিবিদ এম এ মান্নান। নিজের কর্মই তাঁকে সামনে নিয়ে এসেছে। সিলেট প্রেসক্লাবের সম্মানীত সদস্য এম এ মান্নান নিজের কর্মদক্ষতায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পছন্দের ব্যক্তি হয়ে উঠেছেন, জনগণের ভালোবাসায় হয়েছেন সিক্ত।

বৃহস্পতিবার বিকেলে সিলেট প্রেসক্লাবের উদ্যোগে পরিকল্পনা মন্ত্রী এম এ মান্নানকে দেওয়া সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে বক্তারা একথাগুলো বলেন। বক্তারা আরো বলেন, সিলেটের রাজনীতির ইতিহাসে সিলেটবান্ধব কয়েকজন ব্যক্তির তালিকায় এম এ মান্নান অন্যতম। সংবর্ধনার জবাবে পরিকল্পনা মন্ত্রী এম এ মান্নান বলেন, আমি এ অঞ্চলের সন্তান। সিলেটের উন্নয়নে নিজের দায়বোধ থেকে কাজ করে যাবো।

ক্লাব সভাপতি ইকরামুল কবিরের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক এডভোকেট মিসবাহ উদ্দিন সিরাজ, সিলেট প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি ইকবাল সিদ্দিকী, সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি মাসুক উদ্দিন আহমদ।

সাধারণ সম্পাদক ইকবাল মাহমুদের পরিচালনায় বক্তব্য রাখেন সিনিয়র সহ-সভাপতি এনামুল হক জুবের, সহ-সভাপতি এমএ হান্নান, দৈনিক সিলেট সংলাপ সম্পাদক মুহাম্মদ ফয়জুর রহমান, কলামিষ্ট আফতাব চৌধুরী, প্রেসক্লাবের সাবেক সহ-সভাপতি আব্দুল কাদের তাপাদার, সাবেক সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ সিরাজুল ইসলাম, সাবেক কোষাধ্যক্ষ খালেদ আহমদ ও কবীর আহমদ সোহেল, প্রেসক্লাব সদস্য মো. আমিরুল ইসলাম চৌধুরী এহিয়া প্রমুখ। কোরআন তেলাওয়াত করেন প্রেসক্লাব সদস্য এম এ মতিন।

সংবর্ধনার জবাবে পরিকল্পনা মন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশের এখন উদীয়মান সময়। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি আমার এই বিশ্বাস জন্মেছে যে তাঁর নেতৃত্বে বাংলাদেশ থমকে দাঁড়াবে না, দূরন্তগতিতে এগিয়ে যাবে। সরকারের বড় বড় উন্নয়ন পরিকল্পনার প্রসঙ্গ টেনে তিনি বলেন, আমরা রূপপুর পারমানবিক প্রকল্প বাস্তবায়ন করতে যাচ্ছি। প্রথম উপগ্রহ বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট উৎক্ষেপনের পর আবার দ্বিতীয় উপগ্রহ ছাড়ার পরিকল্পনা করছি।

পদ্মাসেতু নির্মাণে সরকারের চ্যালেঞ্জ গ্রহণ ও সফলতার কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, দ্বিতীয় যমুনা সেতুর পর তৃতীয় যমুনা সেতু করার পরিকল্পনা হাতে নেওয়া হয়েছে। যা প্রাথমিক পর্যায়ে কাজ শুরু হয়ে গেছে।

পরকল্পনামন্ত্রী বলেন, আমরা অবশ্যই বৈশ্বিক উন্নয়ন চাই, সড়ক চাই, সেতু চাই। তার চাইতে বড় কিছু চাই, চাই আমাদের আত্মপরিচয়। আমরা আমাদের আত্মপরিচয়ের জন্য নিয়মিত কাজ করে যাচ্ছি এবং তা পারবো।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যে আস্থা ও বিশ্বাসের উপর আমাকে সরকারের গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব দিয়েছেন সেটা যথাযথভাবে পালনে সকলের দোয়া এবং সহযোগিতা কামনা করেন তিনি। সিলেটের উন্নয়ন প্রসঙ্গে তিনি বলেন, দেশের প্রতিটি জেলায় চারলেন সড়ক করার পরিকল্পনা রয়েছে। হাওর অঞ্চল সুনামগঞ্জে রেললাইন এবং বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ দ্রুত তরান্বিত করার আশ্বাস দেন এমএ মান্নান।

তিনি বলেন, আমাদের যত দাবি আছে সেগুলোর কাজ এগিয়ে যাবে। আমরা কাজ শুরু করবো, পরবর্তীতে যিনিই আসবেন কাজ থেমে যাবে না।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে এডভোকেট মিসবাহ উদ্দিন সিরাজ বলেন, সিলেট প্রেসক্লাবের গৌরবোজ্জল ইতিহাস রয়েছে। এই ক্লাবের সময়ে-দুঃসময়ে আমি পাশে ছিলাম। এই ক্লাবের সম্মানীত সদস্য, আমাদের কৃতী সন্তান পরিকল্পনামন্ত্রী এমএ মান্নানকে প্রেসক্লাব যেভাবে সম্মানীত করেছে তাতে আমরা কৃতজ্ঞ।

সভাপতির বক্তব্যে ইকরামুল কবির সিলেট ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ পূর্ণাঙ্গরুপে চালু করে বিশ্ববিদ্যালয়ে রূপান্তর, সুনামগঞ্জ সড়কে এমএ খান সেতুতে টোল আদায় বন্ধ করাসহ সিলেটের বিভিন্ন উন্নয়নে মন্ত্রী দৃষ্টি আকর্ষণ করেন। তিনি বলেন, পরিকল্পনা মন্ত্রী এম এ মান্নান আমাদের আত্মার আত্মীয়। প্রধানমন্ত্রী তাঁকে সরকারের গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রণালয়ের পূর্ণ মন্ত্রীর দায়িত্ব দিয়েছেন এজন্য আমরা কৃতজ্ঞ। অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী থাকাকালে এম এ মান্নান প্রেসক্লাবের জন্য অর্থ বরাদ্দ দিয়ে উর্ধ্বমূখী ভবন সম্প্রসারণের সুযোগ করে দিয়েছেন। ভবিষ্যতেও সিলেট প্রেসক্লাবের সুসময়-দুঃসময়ে তাঁকে পাশে পাবেন বলে আশা ব্যক্ত করেন তিনি।

এ সময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সিনিয়র সাংবাদিক ইকবাল কবির, প্রেসক্লাবের সাবেক সহ-সভাপতি আতাউর রহমান আতা, চ্যানেল এসের বিশেষ প্রতিনিধি আব্দুল মালিক জাকা, সাবেক সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রশিদ মো. রেনু, সাবেক কোষাধ্যক্ষ মো. আফতাব উদ্দিন, ফটো জার্নালিষ্ট এসোসিয়েশনের সভাপতি আব্দুল বাতিন ফয়সল, প্রেসক্লাবের সিনিয়র সদস্য আব্দুর রাজ্জাক, চৌধুরী দেলওয়ার হোসেন জিলন, মুহাম্মদ তাজ উদ্দিন, বাসস এর সিলেট ব্যুরো প্রধান মকসুদ আহমদ মকসুদ, প্রেসক্লাবের সাবেক ক্রীড়া ও সংস্কৃতি সম্পাদক মো. আবদুল আহাদ, সদস্য মুহিবুর রহমান, এনামুল হক রেনু, ইউনুছ চৌধুরী, সুনীল সিংহ, আনাস হাবিব কলিন্স, সাঈদ নোমান, মনির আহমদ, সিন্টু রঞ্জন চন্দ, নৌসাদ আহমেদ চৌধুরী, আব্দুল্লাহ আল নোমান, এটিএম তুরাব প্রমুখ।

কর্যকরী কমিটির নেতৃবৃন্দের মধ্যে কোষাধ্যক্ষ শাহাব উদ্দিন শিহাব, ক্রীড়া ও সংস্কৃতি সম্পাদক নূর আহমদ, পাঠাগার ও প্রকাশনা সম্পাদক খালেদ আহমদ, সদস্য শুয়াইবুল ইসলাম, মো. ফয়ছল আলম।

রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সিলেট মহানগর যুবলীগের সভাপতি সৈয়দ শামীম আহমদ, জগন্নাথপুর উপজেলার সাবেক চেয়ারম্যান আকমল হোসেন, সাবেক ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান মুক্তাদীর আহমদ মুক্তা, সিলেট মহানগর ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি রাহাত তরফদার, ইতালী প্রবাসী আওয়ামী লীগ নেতা জাহিদ আহমেদ রুবেল।

অনুষ্ঠানের শুরুতে পরিকল্পনা মন্ত্রীকে প্রেসক্লাবের পক্ষ থেকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানান ক্লাবের কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্যবৃন্দ। পরে তাঁকে সংবর্ধনা স্মারক উপহার দেওয়া হয়।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *







© All rights reserved © 2017 Nonditosylhet24.com
পোর্টাল বাস্তবায়নে : বিডি আইটি ফ্যাক্টরী লিঃ