সোমবার, ১৪ অক্টোবর ২০১৯, ১২:১৭ অপরাহ্ন

পাকিস্তানকে গুড়িয়ে ফাইনালে বাংলাদেশ

পাকিস্তানকে গুড়িয়ে ফাইনালে বাংলাদেশ

নিউজটি শেয়ার করুন

স্পোর্টস ডেস্ক : পাকিস্তানকে হারিয়ে এশিয়া কাপের ফাইনালে পৌছে গেছে মাশরাফিদের দল। আগামী ২৮ সেপ্টেম্বর দুবাইয়ে ফাইনাল ভাতের মুখোমুখি হবে বাংলাদশ। টাইগারদের দেওয়া ২৪০ রানের সহজ লক্ষ্য তাড়া করে পাকিস্তান নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৯ উইকেট হারিয়ে সংগ্রহ করে ২০২ রান। ফলে ৩৭ রানের সহজ জয় পায় বাংলাদেশ।

বুধবার (২৬ সেপ্টেম্বর) রাতে আবুধাবির শেখ জায়েদ স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত ম্যাচে বাংলাদেশের দেওয়া ২৪০ রানের লক্ষ্য তাাড়া করে ব্যাটিং করতে নেমে ১৮ রানেই তিন উইকেট হারায় পাকিস্তান। সেখান থেকে দলের হাল ধরেন শোয়েব মালিক এবং ইমাম-উল হক। চলতি এশিয়া কাপে প্রায় প্রতি ম্যাচেই দলের ব্যাটিংয়ে হাল ধরা পাকিস্তানি অলরাউন্ডার শোয়েব মালিক এই ম্যাচেও দাঁড়িয়ে গিয়েছিলেন। কিন্তু ৫১ বলে ২ চারে ৩০ রান করা মালিককে ফিরিয়ে টাইগার শিবিরে স্বস্তি ফিরিয়ে আনেন রুবেল হোসেন। ৬৭ রানের জুটি গড়েন দুই পাকিস্তানি ব্যাটসম্যান। ৪৭ বলে ৩১ রান করে ফিরে যান আসিফ আলি। পরের ওভারে বোলার ছিলেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। ওভারের পঞ্চম বলে তাকে এগিয়ে এসে খেলতে যান ইমাম-উল হক। যিনি ততক্ষণে ৮৩ রান করে বাংলাদেশের সবচেয়ে ভয়ঙ্কর অবস্থায় চলে গিয়েছিলেন। এর আগে টস জিতে ব্যাট করতে নেমে ৪৮.৫ ওভারে ২৩৯ রান সংগ্রহ করে অলআউট হয়ে যায় টাইগাররা। ম্যাচের তৃতীয় ওভারের পঞ্চম বলে বড় শট খেলতে গিয়ে আউট হয়ে ফেরেন এক বছর পর ওয়ানডে দলে ডাক পাওয়া সৌম্য সরকার। স্কয়ার লেগে দাঁড়িয়ে ক্যাচ নেন ফখর জামান। তিন নম্বরে ব্যাট করতে আসেন মুমিনুল হক। পরের ওভারের চতুর্থ বলে শাহীন শাহ আফ্রিদিকে দুর্দান্ত এক শটে ইনিংসের প্রথম বাউন্ডারি হাঁকান মুমিনুল। কিন্তু পরের বলেই আফ্রিদির অসাধারণ এক ডেলিভারিতে সরাসরি বোল্ড হয়ে ৪ বলে ৫ রান করে ফেরেন মুমিনুল।পরের ওভারে ফেরেন ওপেন করতে নামা লিটনও। ১৬ বলে মাত্র ৬ রান করে সাজঘরে ফেরেন তিনি। বাংলাদেশের দলের ওপেনিংয়ের সেই পুরানো দৃশ্য। মাত্র ১২ রানের মাথায় তৃতীয় উইকেটের পতনে উইকেটে আসেন মিঠুন। চতুর্থ উইকেটে মুশফিকুর রহিমের সাথে মিলে গড়েন শতরানের জুটি গড়ে দলকে লড়াই করার ভিত্তি গড়ে দেন। বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানদের মধ্যে সর্বোচ্চ রান করেন মুশফিকুর রহিম। এক রানের জন্য সেঞ্চুরি বঞ্চিত হন তিনি। ৯৯ রান করে ফিরে যান সাজঘরে। ওয়ানডেতে এটি তার ৩০তম হাফ সেঞ্চুরি। ৬০ রান করেন মোহাম্মদ মিথুন। ওয়ানডেতে এটি তার দ্বিতীয় অর্ধশত। অন্যদের মধ্যে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ করেন ২৫ রান। পাকিস্তানের বোলারদের মধ্যে জুনায়েদ খান নয় ওভার বল করে ১৯ রান দিয়ে চারটি উইকেট শিকার করেন। অন্যদের মরেধ্য শাহীন শাহ আফ্রিদি ২টি, হাসান আলী ২টি ও শাদব খান ১টি করে উইকেট শিকার করেন।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *







© All rights reserved © 2017 Nonditosylhet24.com
পোর্টাল বাস্তবায়নে : বিডি আইটি ফ্যাক্টরী লিঃ