শুক্রবার, ২৩ অগাস্ট ২০১৯, ০৭:১২ অপরাহ্ন

ফেঞ্চুগঞ্জে ভিজিএফ চাল নিতে আসা দুস্থদের পেটালেন যুবলীগ-স্বেচ্ছাসেবকলীগ নেতা

ফেঞ্চুগঞ্জে ভিজিএফ চাল নিতে আসা দুস্থদের পেটালেন যুবলীগ-স্বেচ্ছাসেবকলীগ নেতা

নিউজটি শেয়ার করুন

নন্দিত ডেস্ক:: সিলেটের ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলার ৩নং ঘিলাছড়া ইউনিয়নে ভিজিএফ এর চাল আনতে যেয়ে চাল না পেয়ে বিক্ষোভ করেন দুস্থরা। রবিবার বিক্ষোভ চলাকালে দুস্থদের উপর লাঠিপেটা করেন সুহেল আহমেদ ও স্বেচ্ছাসেবকলীগ নেতা দানিয়ল আহমেদ।

ফেঞ্চুগঞ্জে কয়েক দিন আগের ভিজিএফ এর চাল পাচারের ঘটনায় আটক চালসহ দুই পিকআপের সুরাহা না হতেই দুস্থদের উপর লাঠিপেটার ঘটনা ঘটল।

জানা যায়, গত বৃহস্পতিবার ভিজিএফ এর চাল বিতরণ করার কথা ছিল। কিন্তু ফেঞ্চুগঞ্জ ৫নং উত্তর কুশিয়ায়া ইউনিয়নের দুই পিকআপে ৬৬ বস্তা চাল পাচার কালে পিকআপসহ আটক করেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মাসুদ রানা। পরে এ নিয়ে হট্টগোল বেজে যাওয়ায় ঘিলাছড়া ইউনিয়নে জানানো হয় আজ রবিবার ২২ এপ্রিল ভিজিএফ এর চাল বিতরণ হবে। তারিখ অনুযায়ী দুস্থরা ইউনিয়নে চাল আনতে যান। কিন্তু তারা চাল পাননি। এ নিয়ে তুমুল হট্টগোল বেধে যায়। দুস্থরা কড়া প্রতিবাদ করে অবস্থান নেন। তাদের সরাতে চড়াও হন যুবলীগ নেতা সুহেল আহমেদ ও স্বেচ্চাসেবকলীগ নেতা দানিয়ল আহমেদ। তারা দুস্থদের গালিগালাজ করে লাঠিপেয়া করে বের করে দিবার চেষ্টা করলে দুস্থরা একজোট হয়ে রুখে দিতে দাঁড়ায়। আঘাতপ্রাপ্ত দুস্থরা ০৯ নং ওয়ার্ডের সকিনা বেগম ফজলু মিয়া, জুনাব আলী এবং ২ নং ওয়ার্ডের কুটন বিবি, ফয়সল আলী, সফিকুল আলী ও অন্যান্য ওয়ার্ডের আব্দুল জব্বার আব্দুল মন্নান আর মা। আছিয়া বেগম খালি বিবি। জহুরুন বেগম জয়নু বেগম সহ আরো অনেক।

পরিস্থিতি সংঘর্ষের দিকে যেতে পারে ভেবে ফেঞ্চুগঞ্জ থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে যায়। এর মধ্যে নিজের ভিজিএফ কার্ডের চাল বুঝে নিতে অনড় লোকজন ক্ষেপে উঠতে থাকেন।

ঘটনাস্থলে থাকা ফেঞ্চুগঞ্জ থানার এস আই ফারুক খন্দকার বলেন, আসলে কার্ডধারী থেকে কার্ডবিহীন লোক বেশি হওয়ায় এ ঝামেলা বেধেছে।

কার্ডধারী অনেকেই অভিযোগ করেন, সুহেল নামে এক নেতা ৫০০ টাকা করে চাওয়ায় এ গণ্ডগোল বাধে। টাকা ছাড়া চাল না দিলে তারা অবস্থান ছাড়বেন না বলে হুমকি দিলে পরিস্থিতি উত্তপ্ত হতে থাকে।

এক সময় ইউনিয়ন থেকে আজ চাল দেওয়া হবে না বলে ঘোষনা দেওয়া হয়।

কয়েকজন ভিজিএফ কার্ডধারীরা অভিযোগ করেন কোনো সমাধান না দিয়ে সাংঘর্ষিক পরিস্থিতি রেখে ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান আশরাফ বাবুল পুলিশের সাথে চলে গেছেন।

এ ব্যাপারে ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান আশরাফ বাবুল এর সাথে ফোনে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলে তাকে পাওয়া যায় নি।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *







© All rights reserved © 2017 Nonditosylhet24.com
পোর্টাল বাস্তবায়নে : বিডি আইটি ফ্যাক্টরী লিঃ