শুক্রবার, ২৩ অগাস্ট ২০১৯, ০৭:১২ অপরাহ্ন

বায়ার্নের দুঃখ রিয়াল

বায়ার্নের দুঃখ রিয়াল

নিউজটি শেয়ার করুন

স্পোর্টস ডেস্ক: রিয়াল মাদ্রিদের বিপক্ষে খেলা ইউরোপ সেরার এই টুর্নামেন্টের শেষ ছয় ম্যাচের সবকটিতেই পরাজয় দেখেছে বায়ার্ন। যার পাঁচটিই আবার নকআউট পর্বে।

এবারও পারল না বায়ার্ন মিউনিখ। সুযোগ পেয়েও তা কাজে লাগাতে পারেনি জার্মান জায়ান্টরা। বুধবার উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগের সেমিফাইনালের প্রথম লেগে রিয়াল মাদ্রিদ ২-১ গোলে হারিয়েছে বায়ার্ন মিউনিখকে। শুরুতে পিছিয়ে পড়েও শেষ পর্যন্ত দারুণ জয়ে ফাইনালের পথে এক ধাপ এগিয়ে গেল জিনেদিন জিদানের শিষ্যরা।

বায়ার্ন মিউনিখকে নিজেদের মাঠে হারিয়েই নতুন এক মাইলফলক স্পর্শ করল রিয়াল মাদ্রিদ। চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ইতিহাসে প্রথম দল হিসেবে ১৫০ ম্যাচ জয়ের রেকর্ড গড়ল রামোস-রোনালদোরা।

শুধু তাই নয়, চ্যাম্পিয়ন্স লিগে রিয়াল মাদ্রিদ যেন বায়ার্ন মিউনিখের জন্য এক দুঃস্বপ্নের নাম হয়ে ওঠছে। কেননা রিয়াল মাদ্রিদের বিপক্ষে খেলা ইউরোপ সেরার এই টুর্নামেন্টের শেষ ছয় ম্যাচের সবকটিতেই পরাজয় দেখেছে বায়ার্ন। যার পাঁচটিই আবার নকআউট পর্বে। তিন পরাজয় সেমিফাইনালে আর বাকি দুটি কোয়ার্টার ফাইনালে। গত অর্ধযুগেরও বেশি সময় ধরে বুন্দেসলিগায় রাজত্ব করছে বায়ার্ন। কিন্তু এই সময়টাতে চ্যাম্পিয়ন্স লিগে তাদের স্বপ্ন ভেঙ্গে চুরমার করে দিচ্ছে রিয়াল মাদ্রিদ।

২০১৩-১৪ মৌসুমে উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগের সেমিফাইনালে রিয়াল মাদ্রিদ অ্যালিয়েঞ্জ এ্যারেনায় ৪-০ গোলে বিধ্বস্ত করেছিল স্বাগতিক বায়ার্ন মিউনিখকে। ২০১৬-১৭ মৌসুমের কোয়ার্টার ফাইনালে তাদের মাঠ থেকেই ২-১ গোলের জয় নিয়ে এসেছিল জিনেদিন জিদানের দল। এবারও সেই একই চিত্রনাট্য। এই অ্যালিয়েঞ্জ এ্যারেনাতেই সবচেয়ে বেশি অ্যাওয়ে ম্যাচ জেতার রেকর্ড এখন রিয়ালের। তার আগে দুটি জয় পেয়েছিল এসি মিলানের মাঠে।

বায়ার্নকে হারানোর ফলে আরও এক নতুন মাইলফলকের হাতছানি দিচ্ছে রিয়াল মাদ্রিদকে। টানা তিনবার চ্যাম্পিয়ন্স লিগ জিতে নিজেদেরকেই ছাড়িয়ে যাওয়ার সুযোগ জিদানের শিষ্যদের সামনে।

আর এই সুযোগটা করে দিলেন মার্সেলো ্এবং মার্কো এসেনসিও। কেননা সেমিফাইনালের প্রথম লেগে জশুয়া কিম্মিচের গোলে ম্যাচ শুরুর ২৮ মিনিটেই যে এগিয়ে গিয়েছিল বায়ার্ন। কিন্তু ৪৪ মিনিটেই দারুণ এক গোলে রিয়ালকে সমতায় ফেরান ব্রাজিলিয়ান ডিফেন্ডার মার্সেলো।

চ্যাম্পিয়ন্স লিগে রিয়াল মাদ্রিদের জার্সিতে শেষ পাঁচ ম্যাচে এটা মার্সেলোর তৃতীয় গোল। অথচ তার আগে ৫৩ ম্যাচে মার্সেলোর গোল মাত্র তিনটি।

মার্সেলো সমতায় ফেরানোর পর রিয়াল মাদ্রিদকে এগিয়ে দেওয়ার কাজটা করেন এসেনসিও। বদলি হিসেবে মাঠে নেমেই দ্বিতীয়ার্ধের ৫৭ মিনিটে গোল করে দলকে এগিয়ে দেন রিয়াল মাদ্রিদের এই স্প্যানিশ মিডফিল্ডার। এরপর আর গোল না হলে ২-১ ব্যবধানের জয় নিয়েই মাঠ ছাড়ে রিয়াল মাদ্রিদ।

এই ম্যাচে অবশ্য দারুণ কিছু সুযোগ পেয়েও সেগুলোকে কাজে লাগাতে পারেননি ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো। এর ফলে থেমে গেল রোনালদোর টানা ১২ ম্যাচে গোল করার রেকর্ড। গত ফেব্রুয়ারির চার তারিখের পর এদিনই প্রথম রিয়ালের হয়ে গোল করতে ব্যর্থ হন সিআর সেভেন। তবে বায়ার্নের বিপক্ষে রিয়াল মাদ্রিদের জার্সিতে এদিন ১৫১ ম্যাচে প্রতিনিধিত্ব করা ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো এখনও চলতি মৌসুমে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের সর্বোচ্চ ১৫ গোলের মালিক।

সূত্র : মার্কা ও বিবিসি

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *







© All rights reserved © 2017 Nonditosylhet24.com
পোর্টাল বাস্তবায়নে : বিডি আইটি ফ্যাক্টরী লিঃ