সোমবার, ২৬ অগাস্ট ২০১৯, ০৭:১৭ পূর্বাহ্ন

বিশ্বনাথে দুই পক্ষের সংঘর্ষে আহত ব্যক্তির মৃত্যু,আটক ৪

বিশ্বনাথে দুই পক্ষের সংঘর্ষে আহত ব্যক্তির মৃত্যু,আটক ৪

নিউজটি শেয়ার করুন

নন্দিত সিলেট : জায়গা-জমির বিরোধের জের ধরে চাচা-ভাতিজার সংঘর্ষে আহত হয়ে মৃত্যুবরণ করেছেন ভাতিজার শ্বশুড়। মৃত্যুবরণকারী কৃষক আতাউর রহমান (৫৫) উপজেলার আমতৈল গ্রামের মৃত হাজী ইসকন্দর আলীর ছেলে।

শনিবার দিবাগত রাতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। রোববার সন্ধ্যায় জানাযার নামাজ শেষে মরহুমের মৃহদেহ দাফন করা হয়েছে। এঘটনায় নিহতের পরিবারের পক্ষ থেকে মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে বলে জানা গেছে।

এ ঘটনায় শনিবার রাতেই অভিযান চালিয়ে বিশ্বনাথ থানা পুলিশ ঘটনার সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে ৪ জনকে আটক করেছে। আটককৃতরা হলেন- রামপাশা ইউপির ২নং ওয়ার্ডের মেম্বার ইমাম উদ্দিনের ছেলে মুহিবুর রহমান (৩৩), মিজানুর রহমান (১৯), মৃত ইজ্জত উল্লার পুত্র আনসার আলী (৪৫), মৃত মো. নুরুজ্জামানের পুত্র রুমান আহমদ (২৩)। এরা সবাই উপজেলার রামাপাশা ইউনিয়নের আমতৈল গ্রামের বাসিন্দা।

জানা গেছে, জায়গা-জমির বিরোধের জের ধরে যুক্তরাজ্য প্রবাসী পারভেজ আহমদ ও তার চাচা আলা উদ্দিনের মধ্যে চলমান বিরুধ মিমাংশা করার জন্য গত ১ মে এক সালিশ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। বৈঠক চলাকালে উভয় পক্ষের মধ্যে কথা কাটাকাটি শুরু হয়। এর এক পর্যায়ে ইট-পাটকেল নিক্ষেপ শুরু হয়। এতে প্রবাসী পারভেজ আহমদ ও তার ভাই জাবেদ আহমদ আহত হন। পরদিন সন্ধ্যায় আমতৈল বাজার থেকে বাড়ি আসার পথিমধ্যে আলা উদ্দিনের পক্ষ নিয়ে ইমাম উদ্দিন মেম্বার গংরা অস্ত্র-সস্ত্রে সজ্জিত হয়ে প্রবাসী পারভেজ আহমদের গতিরোধ করার চেষ্ঠা করেন। এসময় কৃষক আতাউর রহমান গংরা তাদের মেয়ের জামাই প্রবাসী পারভেজ আহমদের পক্ষে অবস্থান নেন। এতে উভয় পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। সংঘর্ষে কৃষক আতাউর রহমান’সহ উভয় পক্ষের বেশ কয়েকজন আহত হন। গুরুত্বর আহত অবস্থায় আতাউর রহমান’সহ আহতদেরকে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

চিকিৎসা গ্রহণ শেষে শনিবার দুপুরে বাড়ি ফিরে আসেন কৃষক আতাউর রহমান। ওই দিন বিকেল বেলা আবার তার (আতাউর) শারীরিক অবস্থার অবনতি হয়ে ফের তাকে চিকিৎসার জন্য রাগীব-রাবেয়া মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শনিবার রাতে মৃত্যুবরণ করেন আতাউর রহমান।

এব্যাপারে অভিযুক্ত ইমাম উদ্দিন মেম্বারের সাথে যোগাযোগ করার চেষ্ঠা করা হলে তাকে পাওয়া যায়নি।

এঘটনায় ৪ জনকে আটকের সত্যতা স্বীকার বিশ্বনাথ থানার অফিসার ইন-চার্জ (ওসি) মোহাম্মদ শামসুদ্দোহা পিপিএম বলেন, মামলা দায়ের হলে তদন্ত সাপেক্ষে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *







© All rights reserved © 2017 Nonditosylhet24.com
পোর্টাল বাস্তবায়নে : বিডি আইটি ফ্যাক্টরী লিঃ