রবিবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৮:০৬ অপরাহ্ন

মৌমাছির বন্ধু শ্রীমঙ্গলের মধু কামাল

মৌমাছির বন্ধু শ্রীমঙ্গলের মধু কামাল

নিউজটি শেয়ার করুন

নিজস্ব প্রতিবেদক: যেখানে মৌমাছিরা দলবদ্ধ থেকে বিস্তার করে বাসা বাঁধে সেখানেই কামাল নামের এক ব্যক্তিকে খুঁজে বেড়ান এলাকার লোকজন। মৌমাছির বাসায় যদি কেহ নড়াচড়া করেন তাহলে তারা উড়ে গিয়ে ছড়িয়ে ছিটিয়ে যায়। অনেক সময় লোকজনকে কামড় দিয়ে আহতও করে। কিন্তু যতো বড় মৌমাছির চাক থাকুক না কেনো মধু কামালের কাছে যেন মৌমাছিরা নতস্বীকার হয়ে তার কাছেই উল্টো আশ্রয় নেয়।

তার গায়ে মৌমাছিরা দলবদ্ধ হয়ে বিস্তার করে। এই মধুকামালের বাড়ী মৌলভীবাজার জেলার শ্রীমঙ্গল উপজেলার সীমান্তবর্তী এলাকার ৪ নং সিন্দুরখাঁন ইউনিয়নের ইজরাগাঁও গ্রামে। তার নাম কামাল মিয়া হলেও এলাকার লোকজন তাকে মধু কামাল বলেই ডাকেন। তার পিতা মরহুম কনর মিয়া।

বেশকয়েক বছর ধরে তিনি বিভিন্ন জায়গায় মৌচাক থেকে মধু সংগ্রহ করেন। তার মধু সংগ্রহের পদ্ধতি বেশ ভয়ংকর হলেও, কাছ থেকে দেখলে মনে হবে, মৌমাছিগুলো তার একান্ত বন্ধু, মৌমাছিরা তার সমস্ত মাথাজুড়ে মূখমন্ডল ছাপিয়ে বসে থাকলেও একটি মৌমাছিও তাকে কোনো কামড় দেয় না, কোনো উৎপাত করেনা, মৌমাছিরা যন্ত্রনা দেয়না।এলাকায় তাকে মধু কামাল বলে ডাকা হয়। ডাক আসলে ছুটে যান দূর দূরান্তে, একান্তই শখের বশিভুত হয়ে তিনি নিজেকে এখন ব্যস্ত রাখছেন এ পেশায়।

মধু কামাল স¤পর্কে ইজরাগাঁও গ্রামের ফুরুক মিয়া বলনে, ‘অনেক দিন ধরেই কামাল মধু সংগ্রহ করে থাকেন। বলতে গেলে মৌমাছিরা তার একান্তই বন্ধুর মতোই। তবে শুরুতে মৌচাক (বলারচাক) ভাঙ্গতে গিয়ে অনেক বলা(মৌমাছি) তাকে কামড়িয়েছে, এখন মৌচাক ভাঙ্গার সময় তার গায়ে মোমাছিরা ভালোবাসার আদর বুলিয়ে দেয় কিন্তু কামড়িয়ে আহত করে না। এলাকার লোকজন কোথাও মৌচাক দেখলে তাকে খবর দিয়ে মধু সংগ্রহ করিয়ে থাকেন। তাঁর মধু সংগ্রহকালে মৌমাছিড়া তাকে কামড়ও দেয় না’।
সিন্দুরখাঁন ইউনিয়নের কুঞ্জবন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ডা. একরামুল কবীর বললেন মধু কামাল অনেক সাহসী। মধু সংগ্রহকালে দেখা যায়, তার গায়ে এসে মৌমাছিরা আপোস মেনে নেয়। সবাই অবাক হয়ে তাকিয়ে থাকে। মানুষ খবর দিয়ে কামাল মিয়াকে নিয়ে মধু সংগ্রহ করে থাকে। দীর্ঘ দিন ধরে সে এ পেশায় নিয়োজিত’।

মধু সংগ্রহকারী কামাল মিয়া জানান তিনি দীর্ঘ ২২ বছর ধরে এ পেশায় আছেন। বিভিন্ন প্রজাতির ফুলের মধু নিজ হাতে যতœ সহকারে সংগ্রহ করে থাকেন। যেমন শষ্য ফুল,লিচু ফুল,বরই ফুল ইত্যাদি। মৌমাছিরা কেনো তার পোষ মানে এবং তার গায়ে এসে বসে থাকে এ বিষয়ে তিনি বলেন,‘ মৌ’রা যেভাবে পোষ মানে ঠিক সে কৌশলই অবলম্বন করে তিনি মধু সংগ্রহ করে থাকেন। অন্য কোন মেডিসিন বা কোন প্রকার প্রক্রিয়া অবলম্বন করেন না। তিনি বললেন, ‘মৌমাছির চাকা ভাঙতে গিয়ে প্রথম প্রথম মৌমাছিড়া কামড় দিলেও এখন আর কামড় দেয় না । কৌশলের কাছে মৌমাছিরা আমার পোষ মেনে সারা গা জুড়ে বসে থাকে’।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *







© All rights reserved © 2017 Nonditosylhet24.com
পোর্টাল বাস্তবায়নে : বিডি আইটি ফ্যাক্টরী লিঃ