শুক্রবার, ১৮ অক্টোবর ২০১৯, ১২:৪৫ অপরাহ্ন

মৌলভীবাজারে ছেলেধরা আতঙ্ক: স্কুলে যেতে অনাগ্রহী শিক্ষার্থীরা

মৌলভীবাজারে ছেলেধরা আতঙ্ক: স্কুলে যেতে অনাগ্রহী শিক্ষার্থীরা

নিউজটি শেয়ার করুন

নিজস্ব প্রতিনিধি :মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলায় ছেলেধরা আতঙ্কে স্কুল-মাদরাসা ও কলেজে শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি কমে গেছে।

ইতোমধ্যে ছেলে ধরা সন্দেহে কমলগঞ্জের দেওরাছড়া চা বাগানে অঞ্জাতনামা ১ বৃদ্ধকে গণ পিটুনি দিয়ে হত্যা করা হয়েছে।

প্রশাসনের পক্ষ থেকে মাইকিং করে আইন নিজের হাতে তুলে না নেয়ার জন্য প্রচারনা চালানো হয়েছে। প্রচারনার পর উপজেলার পৃথক ২টি স্থান থেকে ২ যুবককে ছেলে ধরা সন্দেহে আটক করে পুলিশে সোর্পদ করেছে এলাকাবাসী।

জানা যায়, শনিবার (২০জুলাই) রাত১০টার দিকে রহিমপুর ইউনিয়নের দেওড়াছড়া চাবাগানে অজ্ঞাতপরিচয়ের(৫৫) ১ ব্যক্তিকে আটক করে গণপিটুনি দিয়ে গুরুতরভাবে আহত করে।

পরে মৌলভীবাজার সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে রাত ১২টায় কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষনা করেন।

এদিকে কমলগঞ্জ থানার এএসআই আনিছুর রহমান জানান, রোববার (২১) জুলাই সন্ধ্যায় সাড়ে ৭টায় রহিমপুর ইউনিয়নের দেওড়াছড়া চা বাগান এলাকায় এক অপরিচিত যুবককে সন্দেহজনকভাবে ঘুরাফেরা করতে দেখে স্থানীয়রা তাকে আটক করে।

পরে ছেলেধরা সন্দেহে স্থানীয় জনতা তাকে পুলিশে সোপর্দ করেছে। তিনি জানান, আটক যুবকের নাম সানাউল্যাহ (২৫)। সে বি-বাড়িয়া জেলার সরাইল থানার বাসিন্দা।

সে মানসিক ভারসাম্যহীন। অপরদিকে রোববার বিকাল সাড়ে ৫টায় মুন্সীবাজার ইউনিয়নের উবাহাটা গ্রাম এলাকা থেকে ছেলে ধরা সন্দেহে শহীদুর রহমান (৩২) নামের যুবককে গণধোলাই দিয়ে পুলিশে সোপর্দ করেছে এলাকাবাসী।

আটক শহীদুর রহমান কমলগঞ্জ উপজেলার কমলগঞ্জ সদর ইউনিয়নের সরইবাড়ি গ্রামের মখলিছুর রহমানের ছেলে। কমলগঞ্জ থানার ওসি আরিফুর রহমান জানান, পুলিশী জিঞ্জাসাবাদের জন্য‘দুই যুবককে আটক করে থানায় আনা হয়েছে।

তদন্তপূর্বক আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে। এদিকে ছেলে ধরা আতংক ছড়িয়ে পড়ার কারনে কমলগঞ্জ উপজেলার সর্বত্র স্কুল-মাদরাসা ও কলেজসমুহে শিক্ষার্থীদের উপস্থিতির হার আশংকা জনক হারে কমে গেছে। যেসব শিক্ষার্থীরা স্কুল-মাদরাসা ও কলেজে যাচ্ছেন তাদের সাথে পরিবারের কেউ না কেউ সাথে থাকছেন।

এদিকে বেশী বিপাকে পড়েছে দিন-মজুর ফেরী ওয়ালারা, যারা নাকি বিভিন্ন গ্রামে গ্রামে ফেরী করে নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্য বিক্রি করে থাকেন এবং যারা ভ্রাম্যমান ভাবে বাড়ীর বিভিন্ন কাজ করে থাকেন।

তারা এখন প্রায় বেকার সময় অতিবাহিত করছেন। যাদের বিশেষ কোন পরিচিতি নাই তারা তাদের বাসস্থান থেকে এলাকার বাহির হচ্ছেন না

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *







© All rights reserved © 2017 Nonditosylhet24.com
পোর্টাল বাস্তবায়নে : বিডি আইটি ফ্যাক্টরী লিঃ