মঙ্গলবার, ২২ অক্টোবর ২০১৯, ১১:২০ অপরাহ্ন

ম্যাডামের জন্য একটুও বললেন না, আক্ষেপের সুরে ফখরুল

ম্যাডামের জন্য একটুও বললেন না, আক্ষেপের সুরে ফখরুল

নিউজটি শেয়ার করুন

নন্দিত ডেস্ক :: গণভবনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সাড়ে তিন ঘণ্টার বেশি সময় সংলাপ করেছে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের প্রতিনিধি দল। সংলাপে যোগ দিতে কামাল হোসেনের নেতৃত্বে বেইলি রোডে তার বাসা থেকে বৃহস্পতিবার (০১ নভেম্বর) সন্ধ্যা সোয়া ৫টার দিকে রওনা হয় ঐক্যফ্রন্টের প্রতিনিধি দলটি। সন্ধ্যা পৌনে ৭টার দিকে তারা গণভবনে পৌঁছান।

জাতীয় যুব দিবসের অনুষ্ঠানে অংশ নিয়ে সন্ধ্যা ৬টায় গণভবনে ফেরেন প্রধানমন্ত্রী। জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের নেতারা পৌঁছানোর পর ব্যাংকোয়েট হলে বসেন। সংলাপের নির্ধারিত সময় সন্ধ্যা ৭টায় সেখানে উপস্থিত হন প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা। তিনি শুরুতেই সবাইকে সালাম জানিয়ে একটি সূচনা বক্তব্য রাখেন।

এরপর জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের ২০ নেতার সঙ্গে রুদ্ধদ্বার আলোচনা করেন শেখ হাসিনা। তার সঙ্গে ছিলেন ক্ষমতাসীন জোটের ২২ নেতা। রাত ১০টা ৪০ মিনিট পর্যন্ত এই সংলাপ চলে। সংলাপ শেষে প্রথমেই বেরিয়ে যান জাফরুল্লাহ চৌধুরী। এরপর একে একে অন্য নেতারা বেরিয়ে আসেন।

রাত প্রায় সাড়ে ১১টা। একে একে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের নেতারা প্রবেশ করছেন ড. কামাল হোসেনের বাড়িতে। রাজধানীর বেইলি রোডের এই বাড়িতে আগে থেকেই বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমের কর্মীরা উপস্থিত। বাড়ির আঙ্গিনায় সংবাদকর্মীরা জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের আনুষ্ঠানিক বক্তব্য শোনার অপেক্ষায় থাকলেও ভেতরে নেতারা বসেন পরবর্তী অবস্থান নিয়ে আলোচনায়।

বাড়ির বৈঠকখানার সঙ্গে লাগোয়া বসার স্থানে বসেছেন ঐক্যফ্রন্টের নেতারা। আক্ষেপ করেই বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বললেন, আপনারা ম্যাডামের জন্য একটুও বললেন না! তার কথার উত্তর নেই।

সেকেন্ডের মধ্যেই গণফোরামের নির্বাহী সভাপতি সুব্রত চৌধুরী বলেন, পারলে আন্দোলন করেন। মন্তব্য চলেছে কয়েক মিনিট, প্রতিক্রিয়া-পাল্টা প্রতিক্রিয়া।

মির্জা ফখরুল আবার বলেন, প্রধানমন্ত্রী তার জায়গা থেকে একইঞ্চিও নড়েননি। আ স ম আবদুর রব উচ্চ স্বরে বলে ওঠেন, তাহলে কী বলবো সাংবাদিকদের, বলেন?

পাশ থেকে একজন বললেন, একেবারে নেতিবাচক বললে হবে না। আ স ম রব আবার বললেন, আপনারা কে কী বলবেন, বলেন?

নিজেদের মধ্যে মিনিট বিশেক আলোচনা করে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হন নেতারা। কথা বলেন ড. কামাল হোসেন, মির্জা ফখরুল এবং সুব্রত চৌধুরী।

ঐক্যফ্রন্টের পক্ষ থেকে জানানো হয়, ঐক্যফ্রন্ট নেতাদের মধ্যে ড. কামাল হোসেন তাদের পক্ষের সূচনা বক্তব্য দেন, পরে বিএনপি মহাসচিব জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সাত দফা দাবি উত্থাপন করেন।

বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি, সংসদ ভেঙে দেয়া ইস্যুতে ফখরুল বলেন, এ ব্যাপারে আলোচনা হয়েছে। তিনি সুনির্দিষ্ট করে কিছু বলেননি। ভবিষ্যতে আলোচনা হতে পারে।

সংলাপ নিয়ে আশাবাদী হওয়া যায় কি-না এমন প্রশ্নে বিএনপি মহাসচিব বলেন, আমি আগেই বলেছি, আমরা সন্তুষ্ট নই।

জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের কর্মসূচি চলবে বলেও জানান ফখরুল। তিনি বলেন, সামগ্রিক বিষয় নিয়ে ড. কামাল হোসেন কথা বলবেন।

তাহলে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট সংলাপে কী পেল এমন প্রশ্নে বিএনপি মহাসচিব বলেন, সবসময় কি সবকিছুর অর্জন হয় নাকি?

তফসিলের বিষয় নিয়ে আলোচনা হয়েছে কি-না প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, এ নিয়েও আলোচনা হয়েছে। তবে এটা নির্বাচন কমিশনের এখতিয়ার।

সংসদ ভেঙে, খালেদা জিয়াকে মুক্তি দিয়ে নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে একাদশ সংসদ নির্বাচনের দাবি তোলা জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট গত রোববার সংলাপের আহ্বান জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে চিঠি পাঠান।

পরদিনই সংলাপে রাজি হওয়ার কথা জানিয়ে সংবাদ সম্মেলন করেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

মঙ্গলবার সকালে আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক ও প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারী গোলাপ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আমন্ত্রণপত্র পৌঁছে দেন কামাল হোসেনকে।

বিএনপি নেতারা তাদের নেত্রী খালেদা জিয়ার মুক্তির বিষয়ে জোর দিলেও সংলাপের আমন্ত্রণের চিঠিতে আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা সংবিধানসম্মত উপায়ে নির্বাচন নিয়ে আলোচনায় গুরুত্বারোপ করেছেন।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *







© All rights reserved © 2017 Nonditosylhet24.com
পোর্টাল বাস্তবায়নে : বিডি আইটি ফ্যাক্টরী লিঃ