বৃহস্পতিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৮:০৭ পূর্বাহ্ন

‘যুদ্ধাপরাধ’ মামলা থেকে নাম বাদ দেয়ার প্রতিশ্রুতি, অর্ধকোটি টাকা আত্মসাৎ

‘যুদ্ধাপরাধ’ মামলা থেকে নাম বাদ দেয়ার প্রতিশ্রুতি, অর্ধকোটি টাকা আত্মসাৎ

নিউজটি শেয়ার করুন

হবিগঞ্জ প্রতিনিধি :: হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও গজনাইপুর ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান আবুল খায়ের গোলাপের নাম যুদ্ধোপরাধী মামলা থেকে বাদ দেয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়ে প্রতারণার অভিযোগ উঠেছে। এর প্রতিবাদে ভুক্তভোগী পরিবার ও ছয় মৌজার এলাকাবাসী বিশাল প্রতিবাদ সভা করেছে।
শনিবার রাতে স্থানীয় কায়স্থগ্রাম (উমেদগঞ্জ) বাজারে এ প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত হয়।

প্রতিবাদ সমাবেশে বক্তারা বলেন, সাবেক চেয়ারম্যান মো. শাহ নেওয়াজ ও তার পুত্র ফয়েজ আমিন রাসেল যুদ্ধোপরাধী মামলা থেকে আবুল খায়ের গোলাপের নাম বাদ দেয়া প্রতিশ্রুতি দিয়ে তার স্ত্রী ও বোনদের কাছ থেকে প্রায় অর্ধকোটি টাকা হাতিয়ে নেয়। সহজ সরল তিন নারী নিজের স্বজনকে রক্ষা করতে শাহনেওয়াজ ও তার পুত্র ফয়েজ আমিন রাসেলকে বিভিন্ন সময়ে অর্ধকোটি টাকা দিয়েছেন। সভায় ছয় মৌজাবাসী প্রতারকদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেন।
গজনাইপুর ইউপি আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি আব্দুল কুদ্দুছ মিয়ার সভাপতিত্বে ও আওয়ামী লীগ নেতা আব্দুল কাইয়ূম সেলিমের সঞ্চালনায় এতে বক্তব্য রাখেন আবুল খায়ের গোলাপের বড় বোন মনোয়ারা বেগম, ছোট বোন আনোয়ারা বেগম, ও তাঁর স্ত্রী মিনারা বেগমসহ ছয় মৌজার মোরব্বি ও যুবকরা।
এসময় ভুক্তভোগীরা কান্নাজড়িত কণ্ঠে অভিযোগ করে বলেন, সাবেক চেয়ারম্যান মো. শাহ নেওয়াজ ও তার পুত্র ফয়েজ আমীন রাসেল আমাদের বিভিন্ন প্রলোভন দিয়ে এই এলাকার কৃতি সন্তান আবুল খায়ের গোলাপকে যুদ্ধোপরাধী মামলার এজাহার থেকে নাম বাদ দেয়ার কথা ও প্রতিশ্রুতি দিয়ে কয়েক দফায় প্রায় অর্ধকোটি টাকা হাতিয়ে নেয়। কিন্তু টাকা দেয়ার পরও সাবেক চেয়ারম্যান গোলাপকে বের করে আনার কোনো চেষ্টা তারা করেনি এবং এই টাকা আত্মসাৎ করে। এই প্রতারণার ও দুর্নীতির বিভিন্ন ঘটনা ব্যাখ্যা দিয়ে ছয় মৌজাবাসীর কাছে এর বিচার চেয়েছেন তারা।

প্রতিবাদ সভায় বক্তব্য রাখেন- এলাকার বিশিষ্ট মুরুব্বী মহিবুর রহমান চৌধুরী, ইউপি আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ সভাপতি আনোয়ার মিয়া, মনিদ্র চন্দ্র রায়, কাছন মিয়া, শফিউল আলম বজলু, মকসুদ চৌধুরী, সাবেক ইউপি সদস্য শাহ গোলাম ইজদানী শামীম, বিশিষ্ট মুরুব্বি আমিনুল ইসলাম এলাইছ, ছনর মিয়া, কাপ্তান মিয়া, আলা মিয়া চৌধুরী, সফিক মিয়া, ইউপি সদস্য জাহেদ আহমদ, আব্দুল মালিক, ছাও মিয়া, সাদিক মিয়া, কাজল মিয়া, জালাল মিয়া, উপজেলা যুবলীগের সদস্য রুহেল আহমদ, ইউপি যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক আবুল হোসেন লাল, আ’লীগের ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক আইয়ুব আলী, আবু মিয়া, সেকুল মিয়া, যুবলীগ নেতা জিলু মিয়া, অয়তুন মিয়া, মোবারক মিয়া, সাবাজ মিয়া, শাহিন মিয়া, সৈরত মিয়া, আব্দুল হাই, টনু মিয়া, রাজা মিয়া প্রমুখ।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *







© All rights reserved © 2017 Nonditosylhet24.com
পোর্টাল বাস্তবায়নে : বিডি আইটি ফ্যাক্টরী লিঃ