বৃহস্পতিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০২:২৪ পূর্বাহ্ন

লিয়াকতের বিরুদ্ধে দুদকের এজহারে যা আছে

লিয়াকতের বিরুদ্ধে দুদকের এজহারে যা আছে

নিউজটি শেয়ার করুন

নন্দিত সিলেট : সিলেটের জৈন্তাপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক, উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন পাওয়া লিয়াকত আলীর বিরুদ্ধে ঢাকার রমনা থানায় এজহার দাখিল করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগে তার বিরুদ্ধে গত সোমবার (১১ ফেব্রুয়ারি) রাজধানীর রমনা মডেল থানায় মামলাটি করেন দুদকের সহকারী পরিচালক সাইদুজ্জামান।

দুদকের উপপরিচালক (জনসংযোগ) প্রণব কুমার ভট্টাচার্য এ তথ্য নিশ্চিত করে বলেন, তাঁর বিরুদ্ধে জ্ঞাত আয়বহির্ভূত সম্পদ অর্জন ও সম্পদের তথ্য গোপনের অভিযোগ আনা হয়েছে।

মামলার এজহারে যা আছে: এজাহার হুবহু তুলে ধরা হলো-
আমি মো. সাইদুজ্জামান, সহকারী পরিচালক, দুর্নীতি দমন কমিশন, প্রধান কার্যালয়, ঢাকা এ মর্মে এজাহার করছি যে, জনাব লিয়াকত আলী, পিতা-মৃত ওয়াজিদ আলী, গ্রাম-বাউরভাগ, উপজেলা-জৈন্তাপুর, জেলা-সিলেট অবৈধ উপায়ে জ্ঞাত আয় বহির্ভূত ২, ৫৭, ৫২, ২৩১.২৬ টাকা মূল্যের স্থাবর ও অস্থাবর সম্পদসহ ১টি ট্রাক ও ১টি মোটরসাইকেল তার নিজ নামে অর্জন করেছেন এবং দুর্নীতি দমন কমিশনে দাখিলকৃত সম্পদ বিবরণীতে ১, ০১, ৪৩, ৩৮২.১৮ টাকা মূল্যের স্থাবর ও অস্থাবর সম্পদসহ ১টি ট্রাক ও ১টি মোটরসাইকেল গোপন করেছেন। জনাব লিয়াকত আলী দুর্নীতি দমন কমিশনে দাখিলকৃত সম্পদ বিবরণীতে উক্ত অর্থ অর্জনের উৎস ও খাতের মিথ্যা বিবরণী দাখিল করে এবং জ্ঞাত আয় বহির্ভূত সম্পদ অর্জনপূর্বক দখলে রেখে দুর্নীতি দমন কমিশন আইন, ২০০৪ এর ২৬(২) ও ২৭(১) ধারায় শাস্তিযোগ্য অপরাধ করেছেন।

ঘটনার সংক্ষিপ্ত বিবরণ এই যে, দুর্নীতি দমন কমিশন প্রধান কার্যালয়, ঢাকার নথি নং দুদক/বিঃ অনুঃ ও তদন্ত-১/০৬-২০১৭ অনুসন্ধানকালে দেখা যায় যে, জনাব লিয়াকত আলী, পিতা-মৃত ওয়াজিদ আলী, গ্রাম-বাউরভাগ, উপজেলা-জৈন্তাপুর, জেলা-সিলেট এর নামে জ্ঞাত আয় বহির্ভূত সম্পদ অর্জন করেছেন মর্মে প্রাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতে প্রাথমিক অনুসন্ধান করে অভিযোগের সত্যতা পাওয়ায় দুর্নীতি দমন কমিশন, প্রধান কার্যালয়, ঢাকার স্মারক নং দুদক/বিঃ অনুঃ ও তদন্ত-১/০৬-২০১৭/৩২২২৩/১(৫) তারিখ ২৫/১০/২০১৭ মূলে লিয়াকত আলীর নামে ও তার উপর নির্ভরশীল পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের নামে অর্জিত স্থাবর ও অস্থাবর সম্পদের হিসাব বিবরণী চাওয়া হয়। তৎপ্রেক্ষিতে জনাব লিয়াকত আলী গত ১৫/১১/২০১৭ খ্রি. তারিখে দুর্নীতি দমন কমিশনে তার সম্পদ বিবরণী দাখিল করেন। তার দাখিলকৃত সম্পদ বিবরণী যাচাই/অনুসন্ধান করে প্রতিবেদন দাখিল করার জন্য আমাকে নির্দেশ প্রদান করা হয়।

সম্পদ বিবরণী যাচাইকালে দেখা যায় যে, জনাব লিয়াকত আলী দুর্নীতি দমন কমিশনে দাখিলকৃত সম্পদ বিবরণীতে তার নিজ নামে ১,৩৪,১২,৯১৪ টাকা মূল্যের স্থাবর ও ৮১,৭৪,৮১৩.০৮ টাকা মূল্যের অস্থাবরসহ মোট (১,৩৪,১২,৯১৪ +৮১,৭৪,৮১৩.০৮) = ২,১৫,৮৭,৭২৭.০৮ টাকা মূল্যের স্থাবর ও অস্থাবর সম্পদের মালিকানা অর্জনের ঘোষণা দেন। দাখিলকৃত সম্পদ বিবরণী যাচাইকালে তার নামে (১) দলিল নং ১৫৯৭/১৭ মূলে ক্রয়কৃত ০.২৩ একর জমি যার মূল্য রেজি. খরচসহ ৩৩,০০,০০০ টাকা, (২) দলিল নং ৯৫৫/১০ মূলে ক্রয়কৃত জমির মূল্য ২৫,৬৬৬.৬৭ টাকা ও (৩) স্থাপনার ক্ষেত্রে ৯২,৪০,০০০ টাকার পরিবর্তে মাত্র ২৪,৮৫,৫১৪ টাকা মূল্য প্রদর্শন করে অবশিষ্ট ৬৭,৫৪,৪৮৬ টাকাসহ মোট (৩৩,০০,০০০ +২৫,৬৬৬.৬৭+৬৭,৫৪,৪৮৬) =১,০০,৮০,১৫২.৬৭ টাকার স্থাবর এবং (১) বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংক, জৈন্তাপুর শাখায় জমাকৃত ১১,০৩৭ টাকা, (২) ডাচ বাংলা ব্যাংকে জমাকৃত ৫২,১৯২.৫১ টাকা, (৩) ২০১০ সনে তার অনুকূলে রেজিস্ট্রিকৃত ১টি ট্রাক ও (৪) ০৩/৯/১৫ খ্রি. তারিখ তার অনুকূলে রেজিস্ট্রিকৃত ১টি মোটরসাইকেলসহ মোট (১১,০৩৭+৫২,১৯২.৫১)=৬৩,২২৯.৫১ টাকার অস্থাবর সর্বমোট (১,০০,৮০,১৫২.৬৭+ ৬৩,২২৯.৫১) =১,০১,৪৩,৩৮২.১৮ টাকার স্থাবর অস্থাবর সম্পদসহ ১টি ট্রাক ও ১টি মোটরসাইকেল গোপনপূর্বক মিথ্যা বিবরণী দাখিল করে দুর্নীতি দমন কমিশন আইন-২০০৪ এর ২৬(২) ধারায় শাস্তিযোগ্য অপরাধ করেছেন।

সম্পদ বিবরণী যাচাইকালে আরও দেখা যায় যে, জনাব লিয়াকত আলীর নামে মোট ৩, ১৭,৩১,১০৯.২৬ টাকার স্থাবর ও অস্থাবর সম্পদ পাওয়া যায়। অপরদিকে তার আয়কর নথিতে ঘোষিত ব্যয় ও খরচ ব্যতীত তার ব্যবসা ও দান হিসেবে প্রাপ্ত খাত হতে মোট আয় পাওয়া যায় ৫৯,৭৮,৮৭৮ টাকা। এক্ষেত্রে তার নামে অতিরিক্ত সম্পদ পাওয়া যায় (৩,১৭,৩১,১০৯.২৬-৫৯,৭৮,৮৭৮)=২,৫৭,৫২,২৩১.২৬ টাকা। লিয়াকত আলী অবৈধ উপায়ে জ্ঞাত আয় বহির্ভূত ২,৫৭,৫২,২৩১.২৬ টাকা মূল্যের স্থাবর ও অস্থাবর সম্পদ তার নিজ নামে অর্জন করে উহা তার দখলে রেখে দুর্নীতি দমন কমিশন আইন-২০০৪ এর ২৭(১) ধারায় শাস্তিযোগ্য অপরাধ করেছেন।

এমতাবস্থায়, লিয়াকত আলী, পিতা-মৃত ওয়াজিদ আলী, গ্রাম-বাউরভাগ, উপজেলা-জৈন্তাপুর, জেলা-সিলেট এর বিরুদ্ধে দুর্নীতি দমন কমিশন আইন-২০০৪ এর ২৬(২), ২৭(১) ধারায় আপনার থানায় একটি নিয়মিত মামলা রুজু করার জন্য অনুরোধ করা হলো। দুর্নীতি দমন কমিশন, প্রধান কার্যালয়, ঢাকার স্মারক নং-০০.১.০০০০.৫০১.০১. ০০৬.১৭.৪০৫৩, তারিখ: ০৫/০২/২০১৯ খ্রি. মোতাবেক এ মামলাটি রুজুর অনুমোদন প্রদান করা হয়। দুর্নীতি দমন কমিশন মামলাটি তদন্তের ব্যবস্থা করবেন।

এদিকে, লিয়াকত আলী আসন্ন উপজেলা নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেয়েছেন। মামলা দায়েরের খবর প্রকাশিত হওয়ার পর তাঁকে নিয়ে আলোচনা-সমালোচনা চলছে। অবৈধ সম্পদ অর্জন ছাড়াও লিয়াকত আলীর বিরুদ্ধে অবৈধভাবে পাথর উত্তোলন করে জাফলংয়ের দুটি নদী ধ্বংস করা, পাথর কোয়ারি দখলে নিতে খুনের মামলাসহ নানা অভিযোগ রয়েছে।

তবে লিয়াকতের অনুসারীদের দাবি, এ মামলা আসন্ন উপজেলা নির্বাচনে কোনো প্রভাব ফেলবে না।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *







© All rights reserved © 2017 Nonditosylhet24.com
পোর্টাল বাস্তবায়নে : বিডি আইটি ফ্যাক্টরী লিঃ