বুধবার, ২৩ অক্টোবর ২০১৯, ০১:২৪ অপরাহ্ন

শহিদুল ইয়াবা ব্যবসায়ী নয়, ষড়যন্ত্রের শিকার: সমাবেশ বক্তারা

শহিদুল ইয়াবা ব্যবসায়ী নয়, ষড়যন্ত্রের শিকার: সমাবেশ বক্তারা

নিউজটি শেয়ার করুন

ওসনমানীনগর প্রতিনিধি :: সিলেটের ওসমানীনগরের ওয়ালিমা ফার্মেসীর পরিচালক শহিদুল ইসলাম চৌধুরীর মুক্তি দাবি জানিয়ে সমাবেশ ও গনস্বাক্ষর অনুষ্ঠিত হয়েছে।

এসময় বক্তারা বলেন, শহিদুল ইসলাম চৌধুরীর ষড়যন্ত্রের শিকার। সে ইয়াবা ব্যবসায়ী নয়। জায়গা সংক্রন্ত বিরোধের কারণে কেউ এমন ঘটনা পরিকল্পিত ভাবে ঘটিয়েছে। যদিও শহিদুলকে ২১ তারিখ আটক করা হয় কিন্তু এজাহারে উল্যেখ করা হয়েছে ২২ তারিখ আটক করা হয়েছে।

শহিদুল ইসলামকে আটকের বিষয় নিয়ে একটি পক্ষ নাটক সৃষ্টি করতে চাচ্ছে। কিন্তু গ্রামবাসী তা হতে দিবে না। কেউই আইনের উর্ধে নয় আমরা আইনকে সম্মান করি, তাই একজন নিরপরাধ কেই শস্তি ভোগ করুক তা কেউই চায় না। তাই আইনি প্রক্রিয়ায় শহিদুলকে মুক্ত করে আনা হবে।

বৃহস্পতিবার সকাল ১১টায় গ্রামবাসীর উদ্যোগে গোয়ারাবাজার ইউনিয়নের কছকুরাই গ্রামে শহিদুল ইসলামের নিজ বাড়িতে সমাবেশে ও গণস্বাক্ষর অনুষ্ঠানে এসময় বক্তারা উপরোক্ত কথা বলেন।

সিলেট এইডেড স্কুল এন্ড কলেজের শিক্ষক সৈয়দ এনায়েত হোসেনের সভাপত্বিতে বক্তব্য রাখেন- আব্দুল মালিক শিকদার, গৌছ মিয়া, জেলা আলীগ নেতা সৈয়দ এফতেখার হোসেন পিয়ার, জেলা পরিষদের সদস্য আশিক মিয়া, গোয়ালাবাজার ইউপি চেয়ারম্যান আতাউর রহমান মানিক, উমরপুর ইউপি চেয়ারম্যান গোলাম কিবরিয়ার, একলাসুর রহমান, সাহাব উদ্দিন, আওয়ামীগ নেতা আনোয়ার আলী, সৈয়দ শানুর মিয়া, ব্যবসায়ী সাবু মিয়া, গফপার শিকদার, শফিউল আলম, শফিক মিয়া, ইউপি সদস্য আমিরুল ইসলাম শিকদার, তছন মিয়া, ব্যবসায়ী মনির মিয়া, আব্দুল হান্নান শিকদার, গোয়ালাবাজার বনিক সমতির সাবেক সাধারণ সম্পাদক মোস্তাক আহমদ প্রমুখ।

এসময় উপস্থিত গ্রমাবাসীর শহিদুল মুক্তি পরিষদ নামে একটি কমিটি গঠন করেন। জেলা আলীগ নেতা সৈয়দ এফতেখার হোসেন পিয়ারকে সভাপতি ও ইউপি চেয়ারম্যন আতাউর রহমান মানিককে সাধারণ সম্পাদক করে শহিদুল মুক্তি পরিষদ নামে একটি কমিটি গঠন করা হয়।

প্রসংগত, প্রতিদিনের মত ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে অক্টোবর মাসের ২১ তারিখ দিবাগত রাতে দুই ভাইকে সাথে নিয়ে বাড়ি ফিরছিলেন শহিদুল ইসলাম চৌধুরী। এসময় র‌্যাব-৯ এর একটি দল গোয়ালাবাজার এলাকা থেকে দুই ভাইসহ শহিদুলকে আটক করে। কিন্তু আটকের কিছুক্ষন পর তার দুই ভাইকে ছেড়ে দিলেও শহিদুলকে নিয়ে যাওয়া যান র‌্যাব সদস্যরা। পরবর্তীতে ওসমানীনগর থানা পুলিশের কাছে হস্তান্তর করে তার বিরুদ্ধে মাদক আইনে মামলা দায়ের করা হয়।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *







© All rights reserved © 2017 Nonditosylhet24.com
পোর্টাল বাস্তবায়নে : বিডি আইটি ফ্যাক্টরী লিঃ