বুধবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৩:২৭ অপরাহ্ন

সাফল্যের রেকর্ড গড়েছে মুহিবুর রহমান একাডেমি, বেড়েছে জিপিএ ৫

সাফল্যের রেকর্ড গড়েছে মুহিবুর রহমান একাডেমি, বেড়েছে জিপিএ ৫

নিউজটি শেয়ার করুন

নন্দিত সিলেট:সাফল্যের রেকর্ড গড়েছে মুহিবুর রহমান একাডেমি, বেড়েছে জিপিএ ৫

এবারের ২০১৮ সালের জেএসসি ও পিইসি পরীক্ষায় আবারো সাফল্যের রেকর্ড গড়েছে নগরীর দরগামহল্লাস্থ সিলেট মুহিবুর রহমান একাডেমির শিক্ষার্থীরা। তাই এ ফলাফলে শিক্ষার্থীদের মধ্যে বিরাজ করেছে উল্লাস ও উদ্যমী উৎসব। শিক্ষার্থী আর অভিভাবকরা সন্তোষ প্রকাশ করেছেন প্রাপ্ত ফলাফলে। উক্ত ফলাফলে সন্তুষ্ট হয়ে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা একাডেমির ব্যতিক্রমী উদ্যোগ ও প্রযুক্তি ভিত্তিক পাঠদান পদ্ধতির প্রশংসা করেন। সোমবার একাডেমি প্রাঙ্গনে আনন্দঘন পরিবেশে মুহিবুর রহমান ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান অধ্যাপক মো. মুহিবুর রহমান ও একাডেমির প্রিন্সিপাল রোটারিয়ান মোহাম্মদ শামছ উদ্দিন ফলাফল ঘোষণা করে বলেন, প্রতিবছর মুহিবার রহমান একাডেমি শতভাগ সফলতা অর্জনে প্রতিবছর সাফল্যের বাজিমাত করে আসছে । মুহিবুর রহমান ফাউন্ডেশনের শিক্ষাউদ্যোগ শিক্ষার্থীদের সাফল্যের পথ শাণিত করে দেয় সর্বোচ্চ মেধা ও আন্তরিক সৃজনশীলতাদিয়ে। এ ফলাফলে তিনি সকল শিক্ষার্থী কৃতকার্য হওয়ায় শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের অভিনন্দন জানিয়েছেন। প্রতিষ্ঠানে পিইসিতে ৬৩ জন শিক্ষার্থী অংশ নিয়ে সবাই পাশ করেছে এরমধ্যে সর্বমোট জিপিএ ৫ পেয়েছে ২৭ জন । বাংলা ভার্সনে ৩৭ জনের মধ্যে জিপিএ-৫পেয়েছে ১৩ জন, ইংরেজি ভার্সনে, জিপিএ-৫ পেয়েছে ১৪ জন, বাংলা ভার্সনে জিপিএ-৪ পেয়েছে ১৪ জন,এ-মাইনাস পেয়েছে৫জন জিপিএ-৩,বি-পেয়েছে ৩ জন সি-গ্রেড পেয়েছে ২ জন। ইংরেজি ভার্সনে, জিপিএ-৫ পেয়েছে ১৪জন,জিপিএ ৪ পেয়েছে ১১ জন, জিপিএ ৩ পেয়েছে ১ জন । পিইসি পরীক্ষায় মোট পরীক্ষার্থীর সংখ্য ৬৩ জন ছিল পাশের হার শতভাগ । এছাড়া জিএসসিতে বাংলা ভার্সনে ২৭ জন ও ইংরেজি ভার্সনে ১১জন শিক্ষার্থী অংশ নিয়ে, সর্বমোট ৩৮ জন শিক্ষার্থীর মধ্যে সবাই পাশ করেছে পাশের হার শতভাগ। ফলাফল প্রদানে এ সময় উপস্থিত ছিলেন একাডেমির প্রিন্সিপাল সহ শিক্ষক শিক্ষিকা, অভিবাবকসহ প্রমুখ শিক্ষার্থীরা উপস্থিত ছিলেন। মুহিবুর রহমান একাডেমির প্রিন্সিপাল রোটারিয়ান মোহাম্মদ শামছ উদ্দিন, সন্তোষজনক ফলাফলে বলেন, একাডেমির এই সাফল্যের পিছনে রয়েছে একটি সম্মিলিত প্রয়াস।তবে ছাত্র-ছাত্রীদের শতভাগ ক্লাশে এবং পরীক্ষায় উপস্থিতি আর টেস্ট পরীক্ষার পর ফাইনালের আগ পর্যন্ত যতœসহকারে বিশেষ পাঠদান একটি উল্লেখযোগ্য বিষয় বলে আমি মনে করি। এদিকে,একাডেমির এমন সাফল্যে শিক্ষার্থী অভিবাবকদের অভিনন্দন জানিয়েছেন সিলেট কমার্স কলেজ সিলেট বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি কলেজ ইডেন গার্ডেন স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ শিক্ষক শিক্ষিকাবৃন্দ।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *







© All rights reserved © 2017 Nonditosylhet24.com
পোর্টাল বাস্তবায়নে : বিডি আইটি ফ্যাক্টরী লিঃ