বৃহস্পতিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৪:২৮ অপরাহ্ন

সিমলাকে চট্টগ্রামে ডাকা হচ্ছে আগামী সপ্তাহে

সিমলাকে চট্টগ্রামে ডাকা হচ্ছে আগামী সপ্তাহে

নিউজটি শেয়ার করুন

নন্দিত ডেস্ক: বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের উড়োজাহাজ ‘ময়ূরপঙ্খী’ ছিনতাই চেষ্টাকারী নিহত পলাশের সাবেক স্ত্রী চিত্রনায়িকা সিমলাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আগামী সপ্তাহে চট্টগ্রামে নেওয়া হবে বলে পুলিশ সূত্রে জানা গেছে।

চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের (সিএমপি) কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিট সিমলাকে চট্টগ্রাম নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদেরএ ব্যবস্থা করছেন। এর আগে সিমলার সাথে একাধিকবার মোবাইলে যোগাযোগ করা হলে কথা বলতে পারেননি মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা। ফলে মামলার তদন্তে সিমলাকে চট্টগ্রামে নেওয়া হচ্ছে।

সিএমপির কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিটের প্রধান উপ-কমিশনার মোহাম্মদ শহীদুল্লাহ বলেন, ‘ঘটনার পর যেসব আলামত উদ্ধার হয়েছিল, সেগুলো পেয়েছি। এছাড়াও র‌্যাব, সেনাবাহিনীর প্যারা-কমান্ডো ব্যাটালিয়নের পক্ষ থেকে একটি খেলনা পিস্তল ও কিছু বিস্ফোরক সদৃশ বস্তু আলামত হিসেবে তদন্ত কর্মকর্তার কাছে হস্তান্তর করা হয়।’

এসব আলামত বিমান ছিনতাই চেষ্টাকারী নিহত যুবক মো. পলাশ আহমেদের কাছ থেকে উদ্ধার হয়েছিল।

জানা গেছে, ২০১৮ সালের ৩ মার্চ সিমলার সঙ্গে পলাশের বিয়ে হয়। একই বছরের ৬ নভেম্বর তাদের বিচ্ছেদ হয়ে যায়। চিত্রনায়িকা সিমলার সঙ্গে বিবাহ-বিচ্ছেদের পর বিমান ছিনতাইয়ের চেষ্টা করেছিলেন পলাশ।

ঘটনার দিন ‘ময়ূরপঙ্খী’ চট্টগ্রাম শাহ আমানত বিমানবন্দরে অবতরণের পর পলাশ সিমলার সঙ্গে কথা বলার আগ্রহ প্রকাশ করেন। এরই পরিপ্রক্ষিতে চিত্রনায়িকা সিমলাকে জিজ্ঞাসাবাদের সিদ্ধান্ত নিয়েছে সিএমপির কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিট।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ও সিএমপির কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিটের পরিদর্শক রাজেশ বড়ুয়া বলেন, ‘সিমলাকে চট্টগ্রামে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে। এর আগে ফোনে কয়েকবার যোগাযোগের চেষ্টা করেও তাকে পাওয়া যায়নি। আগামী সপ্তাহে মামলার তদন্তকাজ আরও এগিয়ে যাবে।’

তিনি বলেন, ‘সিমলার পাশাপাশি উড়োজাহাজ ময়ুরপঙ্খির পাইলট, কেবিনক্রু, ঢাকা ও চট্টগ্রাম সিভিল এভিয়েশন কর্মকর্তা, ঐ বিমানের যাত্রী এবং অভিযান পরিচালনাকারী টিমের সদস্যদেরও পর্যায়ক্রমে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে।’

গত ২৪ ফেব্রুয়ারি ঢাকা শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে ৫ টা ১৩ মিনিটে ছেড়ে আসা বাংলাদেশ বিমান এয়ার লাইন্সের বিমান বিজি-১৪৭ উড্ডয়নের ১৫ মিনিট পর পলাশ আহমেদ নামে এক যুবক বোমা সদৃশ বস্তু ও অস্ত্র দেখিয়ে বিমানটি ছিনতাইয়ের চেষ্টা করেন। ৫টা ৪১ মিনিটে বিমানটি শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরে অবতরণ করে।

বিমানের ইমারজেন্সি ডোর দিয়ে যাত্রী ও কেবিন ক্রুদের দ্রুত বের করে আনা হয়। পরে যৌথবাহিনীর প্যারা কমান্ডো টিমের অভিযানে মারা যান বিমানটি ছিনতাইয়ের চেষ্টাকারী পলাশ।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *







© All rights reserved © 2017 Nonditosylhet24.com
পোর্টাল বাস্তবায়নে : বিডি আইটি ফ্যাক্টরী লিঃ