বুধবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৭:২৩ পূর্বাহ্ন

সিলেটের আতিয়া মহল: ১৭ জঙ্গির নামে চার্জশিট দিবে পুলিশ

সিলেটের আতিয়া মহল: ১৭ জঙ্গির নামে চার্জশিট দিবে পুলিশ

নিউজটি শেয়ার করুন

নন্দিত ডেস্ক:সিলেটের আতিয়া মহলে জঙ্গিবিরোধী অভিযানের প্রায় দুই বছর হতে চলছে। দীর্ঘ তদন্তের পর সেই ঘটনার সব তথ্য জানতে পেরেছে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)।

পুলিশের এই তদন্তকারী সংস্থাটির সূত্র বলছে, সিলেটের ঐ জঙ্গি হামলার ঘটনায় ১৭ জন জঙ্গিকে অভিযুক্ত করে চার্জশিট দিচ্ছে তারা। চূড়ান্ত এই চার্জশিটটি চলতি মাসের শেষের দিকে বা আগামী মাসের প্রথম দিকে আদালতে জমা দেওয়া হতে পারে বলে জানা গেছে।

আলোচিত এ ঘটনায় সিলেটে মোগলাবাজার থানায় দুটি মামলা করা হয়। একটি হত্যা মামলা, অন্যটি বিস্ফোরক আইনে মামলা। প্রথমে র‌্যাব ও ঢাকা মহানগর কাউন্টার টেররিজমের পর মামলার তদন্তভার পায় পিবিআই।

তদন্ত সংস্থার সূত্রে জানা যায়, হামলায় সরাসরি অংশগ্রহণ ও নেপথ্যে থাকার জন্য মোট ১৭ জঙ্গির সম্পৃক্ততা পেয়েছে পিবিআই। সংস্থাটি আরো বলছে, এই ১৭ জন জঙ্গির মধ্যে সিলেট ও মৌলভীবাজারে জঙ্গিবিরোধী অভিযানে ১৪ জঙ্গি নিহত হয়েছে।

এখন জীবিত আছে ৩ জন জঙ্গি। তারা ৩ জনই কারাগারে আছে। চার্জশিটের পর জীবিত এই ৩ জঙ্গির বিচার কার্যক্রম শুরু হবে।

চার্জশিটের বিষয়ে জানতে চাইলে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ও পিবিআই সিলেট ব্যুরোর পরিদর্শক আবুল হোসেন বলেন, সিলেটে জোড়া বোমা বিস্ফোরণে ব্যাবের গোয়েন্দা শাখার তৎকালীন প্রধান লে. কর্নেল আবুল কালাম আজাদ এবং দুই পুলিশ কর্মকর্তা নিহতের ঘটনার সঙ্গে জঙ্গিদের সম্পৃক্ততার তথ্য পেয়েছি। তাদের পরিকল্পনা ও হামলার ধরনসহ কে কি দায়িত্বে ছিল সব কিছু মিলে আমরা চার্জশিট প্রস্তুত করছি। খুব শীঘ্রই চার্জশিট আদালতে জমা দেওয়া হবে।

২০১৭ সালে সিলেট সিটি করপোরেশনের ২৭ নম্বর ওয়ার্ডের দক্ষিণ সুরমার শিববাড়ি-পাঠানপাড়ার পাঁচতলা আবাসিক ভবন আতিয়া মহলের নিচতলায় জঙ্গি আস্তানার সন্দেহ করে পুলিশ।

ঐ বছরেই ২৩ মার্চ দিবাগত রাতে ভবনটি ঘিরে ফেলে পুলিশ। পরদিন ২৪ মার্চ ঢাকা থেকে পুলিশের বিশেষায়িত ইউনিট সোয়াট অভিযানে অংশ নেয়। ২৫ মার্চ সকাল থেকে সেনাবাহিনী অভিযান শুরু করে।

২৫ মার্চ সকাল থেকে ২৮ মার্চ সন্ধ্যা পর্যন্ত আতিয়া মহলে ‘অপারেশন টোয়াইলাইট’ পরিচালনা করে সেনাবাহিনীর প্যারা কমান্ডো দল। অভিযানের প্রথম দিন সন্ধ্যায় আতিয়া মহল-সংলগ্ন পাঠানপাড়া দাখিল মাদ্রাসার কাছে দুই দফা বোমা বিস্ফোরণের ঘটনায় র্যারবের গোয়েন্দা বিভাগের প্রধান, দুজন পুলিশ কর্মকর্তাসহ ৭ জন নিহত হন। এ ঘটনায় আহত হন ৪৩ জন।

২৮ মার্চ সন্ধ্যায় সেনাবাহিনীর অভিযান সমাপ্ত হয়। অভিযানে ৪ জঙ্গি নিহত হয়। এরপর আতিয়া মহলকে বিস্ফোরকমুক্ত করতে ‘অপারেশন ক্লিয়ারিং আতিয়া মহল’ শুরু করে র্যা পিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের বোম্ব ডিসপোজাল ইউনিট।

১০ এপ্রিল এ অভিযানের সমাপ্তি টানা হয়। এরপর ১২ এপ্রিল ভবনের ফ্ল্যাটগুলো ভাড়াটেদের কাছে বুঝিয়ে দেওয়া হলে তাঁরা নিজেদের মালামাল সরিয়ে নেন ঐ ভবন থেকে।

তথ্য সূত্র : বার্তা২৪.কম

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *







© All rights reserved © 2017 Nonditosylhet24.com
পোর্টাল বাস্তবায়নে : বিডি আইটি ফ্যাক্টরী লিঃ