মঙ্গলবার, ২০ অগাস্ট ২০১৯, ০৯:৫৫ অপরাহ্ন

সিলেটের দক্ষিন সুরমায় ভুয়া মাজার বানিয়ে প্রতারণার ফাঁদ!

সিলেটের দক্ষিন সুরমায় ভুয়া মাজার বানিয়ে প্রতারণার ফাঁদ!

নিউজটি শেয়ার করুন

নন্দিত সিলেট :: সিলেটের দক্ষিন সুরমার লালাবাজার ইউনিয়নের বাঘেরখলা গ্রামের ভুয়া মাজার তৈরি করে প্রতারণার অভিযোগ পাওয়া গেছে। ভুয়া মাজারের নামে কয়েকটি পরিবারকে প্রতারণা ও মাজারে মাদক সেবনের আস্তানা গড়ে তুলা হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন স্থানীয় লোকজন।

এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, একটি কুচক্রীমহল ঘরের ভিতরে লালসালু টানিয়ে এলাকায় গায়েভী মাজার বলে ব্যাপক চাঞ্চল্য সৃষ্টি করে এবং প্রতি বৃহস্পতিবার ভুয়া মাজারে মিলাদ এর নামে টাকা সংগ্রহ করে। এছাড়া ভাড়া করা মানুষ দিয়ে মাজারে মানুষের বিশ্বাস সৃষ্টির চেস্টা করছে এই অসাধুচক্র। এ নিয়ে এলাকার মানুষজনের মাঝেব্যাপক চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়েছে ।

স্থানীয় মুরব্বিরা এই ভুয়া মাজার ও মাদকসেবনের আস্তানার বিষয়ে জানতে পেরে এ নিয়ে প্রতিবাদ করেন এবং দক্ষিন সুরমা থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন ।

সরেজমিনে গেলে ওই গ্রামের একাধিক লোকজন জানান, এই স্থানে আগে কোনো মাজার কিংবা কবর ছিল না। মৃত সোনাফর আলীর ছেলে আতিক (৪৫), লুৎফুর (৪২), জোনাব আলী (৪০)ও একই বাড়ির ছালিক মিয়া এবং খসরু মিয়ার প্ররোচনায় কিছু অতিউৎসাহী লোকের সহায়তায় তারা ঘরের ভিতরে ভুয়া কবর তৈরি করে আধ্যাত্মিকভাবে মাজার হয়েছে বলে প্রচার চালায়।

এলাকাবাসী এটিকে ভুয়া মাজার দাবি করে এটি নিয়ে তারা যাতে কোনো প্রতারণা কিংবা ফায়দা লুটতে না সেজন্য ব্যবস্থা নিতে প্রশাসনের প্রতি আহবান জানিয়েছেন।

এ বিষয়ে লালাবাজার ইউনিয়ন চেয়ারম্যান পীর ফয়জুল হক ইকবাল বলেন, আমার জানামতে গায়েবী মাজার বলতে কিছু নেই ,এসব ভাওতাবাজি ছাড়া আর কিছু না । যারা এখানে মাজার বলে প্রচার করছে তাদের আইনের মাধ্যমে বিচারের আওতায় আনার দাবি জানাচ্ছি ।
লালাবাজার ইউনিয়নের ৬নং ওয়ার্ডের সদস্য আব্দুর রহিম বলেন, এলাকার সাধারণ মানুষকে ধোঁকা দেয়ার জন্য এবং এলাকায় মাদকসেবনের আস্তানা তৈরী করতে একটি কুচক্রীমহল এ ভুয়া মাজারের নাটক করছে বলে তিনি দাবি করেন।
এ বিষয়ে দক্ষিন সুরমা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা খায়রুল ফজল বলেন বলেন, গায়েবী মাজার বলতে কোনো কিছু নেই । লোকমুখে শুনেছি এখানে গাজা সেবন করা হয় আমি পুলিশ পাঠিয়েছি , তবে অতি শীঘ্রই আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এ বিষয়ে এসএমপি অতিরিক্ত উপপুলিশ কমিশনার (মিডিয়া) জেদান আল মুসা বলেন গায়েবী মাজার বলতে কোনো কিছু নেই মাজারের নাম নিয়ে যদি এরকম কেউ যদি সাধারণ মানুষকে ধোঁকা দেয়ার চেষ্টা করে তাদের অবশ্যই আইনের আওতায় এনে প্রয়োজনীয় ব্যবস্হা গ্রহন করা হবে ।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *







© All rights reserved © 2017 Nonditosylhet24.com
পোর্টাল বাস্তবায়নে : বিডি আইটি ফ্যাক্টরী লিঃ