মঙ্গলবার, ২০ অগাস্ট ২০১৯, ১০:২২ অপরাহ্ন

সিলেটে ছিনতাইকারী আতঙ্কে নগরবাসী

সিলেটে ছিনতাইকারী আতঙ্কে নগরবাসী

নিউজটি শেয়ার করুন

নন্দিত ডেস্ক :: সিলেট নগরীতে হঠাৎ বেড়ে গেছে ছিনতাই। প্রতিদিন নগরীতে একাধিক ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটছে। এতে নগরবাসীর মধ্যে আতঙ্ক বিরাজ করছে। ছিনতাইকারীদের কবল থেকে মুক্তি পাচ্ছেন না শিক্ষার্থী, মহিলা, সাংবাদিক, মানবাধিকার কর্মী, ব্যবসায়ী রাজনীতিবিদ, পর্যটকসহ বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ। শুধু গত মঙ্গলবারই নগরীর বিভিন্ন স্থানে ছিনতাইয়ের শিকার হয়েছেন ৬ জন।

ফলে শান্তির নগরী সিলেট পরিণত হয়েছে আতঙ্কের নগরী হিসেবে। তবে পুলিশ দিচ্ছে অভয়। রমজান মাসে যাতে অপরাধ কর্মকাণ্ড যাতে বৃদ্ধি না হয় সেজন্য সিলেট মহানগর পুলিশের পক্ষ থেকে তিন স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা করা হয়েছে। সিলেটে ছিনতাই বৃদ্ধি পাওয়ায় উদ্বেগ জানিয়েছে সুশীল সমাজ। ছিনতাইয়ের শিকার হওয়া ব্যক্তিদের মধ্যে কয়েকজন থানায় অভিযোগ করলেও বেশিরভাগই নীরব থাকছেন।

সূত্র জানায়, সিলেট নগরীতে মূলত ছিনতাই হয় ভোর কিংবা গভীর রাতে। দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে আসা মানুষ গাড়ি থেকে নেমে নগরীতে প্রবেশকালে ছিনতাইকারীদের হামলার শিকার হন। বিশেষ করে সিলেট নগরীর ক্বীন ব্রিজ, শাহজালাল ব্রিজ এলাকা, হুমায়ুন রশিদ চত্তর, তালতলা, সুবিদবাজার, জিন্দাবাজার, চৌহাট্টা, কাজিরবাজার ব্রিজ, হাউজিং এস্টেট, দাড়িয়াপাড়া সড়ক ও গলির মুখ, আম্বরখানা-টিলাগড় সড়ক, পাঠানটুলা, কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল, রেল স্টেশন, মীরের ময়দান, পুলিশ লাইন রোড, মেডিকেল রোড, উপশহর এলাকায় মোটরসাইকেল কিংবা সিএনজি চালিত অটোরিকশাযোগে ছিনতাই করে পালিয়ে যায় ছিনতাইকারীরা।

তাছাড়া নগরীর বিভিন্ন এলাকায় ক্লোজ সার্কিট (সিসি) ক্যামেরা থাকলেও এসবে কোনো ফল পাচ্ছেন না নগরবাসী। সিসি ক্যামেরার আওতায় থাকা অনেক এলাকায় প্রায়ই ঘটে মোটরসাইকেল চুরিসহ মহিলাদের পার্স, গলার স্বর্ণের চেইন, মোবাইল ফোনসহ নানা ধরনের গুরুত্বপূর্ণ জিনিসপত্র ছিনতাইয়ের ঘটনা।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, মঙ্গলবার (১৫ মে) ভোর থেকে রাত পর্যন্ত নগরীতে ছিনতাইয়ের শিকার হয়েছেন ছয়জন। এদের মধ্যে মানবাধিকার ও পরিবেশ সাংবাদিক সোসাইটির কর্মী মো. ওয়াহিদুর রহমান এসএমপি’র কোতোয়ালী থানায় অভিযোগ করেছেন।

তার অভিযোগটি তদন্তের জন্য লামাবজারা পুলিশ ফাঁড়ির এসআই শাহীন মিয়াকে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। আর ওই দিন গভীর রাতে নগরীর দাড়িয়াপাড়ায় ছিনতাইয়ের শিকার হন অনলাইন সাজু। সন্ধ্যায় শাহজালাল ব্রিজের দক্ষিণ অংশে মোগলাবাজারে লালই নামে এক কাপড় ব্যবসায়ী ছিনতাইয়ের শিকার হন।

তবে এ ব্যাপারে এসএমপি’র দক্ষিণ সুরমা থানায় কোনো অভিযোগ দাখিল করা হয়নি বলে জানিয়েছেন ওসি খায়রুল ফজল।

১৪ মে নগরীর উপশহর এলাকায় ছিনতাইকালে এক যুবককে ছুরিকাঘাত করে পালিয়ে যাওয়ার সময় ৪ ছিনতাইকারীকে স্থানীয়রা আটক করে গণধোলাই দিয়ে পুলিশের কাছে হস্তান্তর করে। ওই দিন নগরীর হাওয়া পাড়ার আরএন টাওয়ারেরর সামনে এক কলেজ ছাত্রীর গলা থেকে স্বর্ণের চেইন ছিঁড়ে নেয় ছিনতাইকারীরা।

গত ৬ এপ্রিল সন্ধ্যায় নগরীর শাহজালাল ব্রিজ এলাকায় ছিনতাইয়ের শিকার হন দক্ষিণ সুরমা বলদি এলাকার আজাদ মিয়ার স্ত্রী সেলিনা বেগম। তিনি স্বামী-সন্তানসহ সিএনজি চালিত অটোরিকশাযোগে উপশহরে একটি গায়ে হলুদের অনুষ্ঠানে যাচ্ছিলেন। ব্রিজে উঠা মাত্রই একটি কালো পালসার মোটর সাইকেলযোগে দুই ছিনতাইকারী এসে তার পার্স টান দিলে তিনি গাড়ি থেকে পড়ে যান। ওই সময় ছিনতাইকারীরা তাকে টেনে ৭ থেকে ৮ মিটার দূরে নিয়ে যায়। ফলে ওই মহিলার বাম হাত ও কোমরের হাড় ভেঙে যায়।

পরে একটি বেসরকারি হাসপাতালে তার দু-দফা অস্ত্রোপচার হয়। কিন্তু চিকিৎসকরা জানিয়েছেন তিনি পঙ্গুত্ব বরণ করতে পারেন। এর আরো আগে তালতলায় রাতে ছিনতাইয়ের শিকার হন সিলেট জেলা ছাত্রলীগের সাবেক নেতা ও আইনজীবী বনশ্রী দাস অপু। তাকে ছুরিকাঘাত করে মোবাইল, মানি ব্যাগ, নগদ টাকা নিয়ে যায়।

আর সুবিদবাজারে ছিনতাইয়ের শিকার হন ছাত্রদল নেতা বেলাল। ছিনতাইকারীরা তার গলায় ছুরি ধরে টাকা ও মোবাইল ফোন নিয়ে যায়। গত ৩ মে কেন্দ্রীয় মুসলিম সাহিত্য সংসদের সামনে ছিনতাইকারীর কবলে পড়েন সাংবাদিক দিপু সিদ্দিকীর স্ত্রী।

এ সময় সাংবাদিক দিপু ছিনতাইকারীকে আটক করেন। পরে তাকে বিক্ষুব্ধ জনতা গণধোলাই দিয়ে ছেড়ে দেয়। এর পূর্বে ছিনতাইয়ের শিকার হন মাইটিভি সিলেটের ব্যুরো চিফ টুনু তালুকদারের বাবা-মা।

সুশাসনের জন্য নাগরিক (সুজন)-সিলেটের সভাপতি ফারুক মাহমুদ জানান, সিলেটে যে হারে ছিনতাই বেড়েছে তাতে আতঙ্কিত নগরবাসী। তাই দ্রুত এর বিরুদ্ধে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে প্রশাসনকে। তা না হলে দিন দিন এ ধরনের অপরাধপ্রবণতা বেড়েই চলবে।

এ ব্যাপারে এসএমপি’র কোতোয়ালী থানার ওসি গৌছুল হোসেন জানান, ছিনতাইয়ের শিকার কারো অভিযোগ পেলেই তা তদন্ত করে দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়। তাছাড়া ছিনতাইকৃত মালামাল উদ্ধার করতে পুলিশ সবসময়ই অভিযান অব্যাহত রেখেছে।

সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার গোলাম কিবরিয়া জানান, সিলেট নগরীতে যে কোনো ধরনের অপরাধমূলক কর্মকাণ্ড দূর করতে পুলিশ ব্যাপক ভূমিকা পালন করছে। তাছাড়া মোটরসাইকেলে ছিনতাইরোধে সাদা পোশাকে পুলিশ রয়েছে নগরীর বিভিন্ন এলাকায়। আর ছিনতাই রোধে প্রতিদিনই চেকপোস্ট বসিয়ে তল্লাশি করা হচ্ছে। ইতিপূর্বে ছিনতাই হওয়া অনেক মালামাল উদ্ধার করেছে এসএমপি পুলিশ।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *







© All rights reserved © 2017 Nonditosylhet24.com
পোর্টাল বাস্তবায়নে : বিডি আইটি ফ্যাক্টরী লিঃ