মঙ্গলবার, ২০ অগাস্ট ২০১৯, ০১:০৪ পূর্বাহ্ন

সিলেট নতুন কারাগারের উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী

সিলেট নতুন কারাগারের উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী

নিউজটি শেয়ার করুন

নন্দিত সিলেট ::সিলেট সদর উপজেলার বাদাঘাট চেঙ্গেরখাল নদীর তীরে অবস্থিত নবনির্মিত কেন্দ্রীয় কারাগারের উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী। বৃহস্পতিবার (১ নভেম্বর) বেলা ১১ টায় গণভবন থেকে সরাসরি ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে নবনির্মিত এই কারাগারের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

নতুন কারাগারের উদ্বোধন উপলক্ষে বৃহস্পতিবার সিলেট জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে এক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। এখানে উপস্থিত সিলেট জেলা প্রশাসন, পুলিশ প্রশাসনসহ আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দ। তারা সরাসরি ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে গণভবনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যুক্ত ছিলেন।

ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপনের সাত বছর পর উদ্বোধন হল নবনির্মিত সিলেট কেন্দ্রীয় কারাগার। দুই হাজার বন্দি ধারণ ক্ষমতার কারাগারটি।

সিলেট জেলা সম্মেলন কক্ষে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে ছিলেন সংসদ সদস্য ইমরান আহমদ, সংসদ সদস্য মাহমুদ উস সামাদ কয়েছ, সিলেটের বিভাগীয় কমিশনার মোহাম্মদ মেজবাহ্ উদ্দিন চৌধুরী, সিলেট রেঞ্জ পুলিশের ডিআইজি মো. কামরুল আহসান, জেলা প্রশাসক এম কাজী এমদাদুল ইসলাম, জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ও জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট লুৎফুর রহমান, মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি বদর উদ্দিন আহমদ কামরান, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক সংসদ সদস্য শফিকুর রহমান চৌধুরী, সাবেক সংসদ সদস্য সৈয়দা জেবুনেছা হক, সদর উপজেলা চেয়ারম্যান আশফাক আহমদ, সিলেট কেন্দ্রীয় কারাগারের সিনিয়র জেল সুপার আবদুল জলিল প্রমুখ।

সিলেট কেন্দ্রীয় কারাগারের সিনিয়র জেল সুপার আবদুল জলিল জানান, নতুন কারাগার উদ্বোধন করা হলেও পুরনোটি এখনও বহাল থাকবে। ডিসেম্বর নাগাদ নতুন কারাগারে কিছু বন্দিদের স্থানান্তর করা হবে। তবে নতুন কারাগারে সাজাপ্রাপ্ত কয়েদিদের স্থানান্তর করা হবে।

জানা গেছে, ২০১০ সালে সিলেটে নতুন কারাগার নির্মাণ ও স্থানান্তরের প্রকল্প একনেকে পাস হয়। এরপরে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের চেষ্টায় সদর উপজেলার বাদাঘাট চেঙ্গেরখাল নদীর তীরে নতুন এই কারাগার নির্মাণের ঘোষণা দেওয়া হয়।

সংশ্লিষ্টরা জানান, নবনির্মিত এই কারাগারে স্যুয়ারেজ ট্রিটমেন্ট প্ল্যান্ট, ১০০ শয্যার পাঁচতলা বিশিষ্ট চারটি হাসপাতাল, স্কুল ও লাইব্রেরি ভবন ছাড়াও কর্মকর্তা-কর্মকর্তাদের জন্য একশ ৩০টি ফ্ল্যাট রয়েছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে আরো জানা গেছে, প্রায় দুই হাজার বন্দির ধারণ ক্ষমতার এই কারাগারে পুরুষ বন্দিদের জন্য ৬ তলা বিশিষ্ট ৪টি ভবন এবং নারী বন্দিদের জন্য দ্বিতল বিশিষ্ট দুইটি ও ৪ তলা একটি ভবন নির্মাণ করা হয়েছে। রান্নার কাজের জন্য এক তলা বিশিষ্ট ৫টি ভবন রয়েছে। স্টোর রুম বা খাবার মজুত রাখার জন্য ৪টি ভবন রয়েছে। কারাগারে দ্বিতল বিশিষ্ট রেস্ট হাউসও করা হয়েছে একটি। এছাড়া চার তলা বিশিষ্ট একটি ডে কেয়ার সেন্টার, মসজিদ, স্কুল ও লাইব্রেরি রয়েছে।

তাছাড়া কর্মকর্তা-কর্মচারীদের আবাসন, ক্যান্টিন, বন্দিদের সঙ্গে সাক্ষাতকার কক্ষ এবং প্রশাসনিক কার্যালয় করা হয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *







© All rights reserved © 2017 Nonditosylhet24.com
পোর্টাল বাস্তবায়নে : বিডি আইটি ফ্যাক্টরী লিঃ