বৃহস্পতিবার, ২২ অগাস্ট ২০১৯, ০৬:৪১ পূর্বাহ্ন

২০ শয্যায় কলম-কাগজে তিন, দায়িত্ব পালন করছেন ১ চিকিৎসক

২০ শয্যায় কলম-কাগজে তিন, দায়িত্ব পালন করছেন ১ চিকিৎসক

নিউজটি শেয়ার করুন

নিজস্ব প্রতিবেদক : ২০ শয্যার হাসপাতালে কাগজ-কলমে কর্মরত চিকিৎসকের সংখ্যা ৩ জন। দায়িত্ব পালন করেন একজন। দায়িত্বপালনকারী চিকিৎসক ব্যস্থ থাকেন প্রাইভেট চিকিৎসা নিয়ে। হাসপাতালটির নাম সুনামগঞ্জের ছাতক উপজেলাধীন কৈতক ২০ শয্যা হাসপাতাল। ডাক্তারদের অনুপস্থিতির কারণে চিকিৎসা সেবা নিতে আসা মানুষজন এখন চরম ভোগান্তিতে রয়েছেন।

বৃহস্পতিবার খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ৩জন ডাক্তারের মধ্যে কর্তব্যরত আছেন ১জন। তাও আবার ব্যক্তিগত চেম্বারে রোগী দেখতে ব্যস্ত। ২০ শয্যা হাসপাতাল কৈতকের ইনচার্জ ডাক্তার মোহাম্মদ মোজাহারুল ইসলাম সরকারী ট্রেনিংগে রয়েছেন ঢাকায়। ডাক্তার মো. আবু সালেহীন খান হাসপাতালে অনুপস্থিত।

কর্তব্যরত রয়েছেন ডাক্তার সাইদুর রহমান। ৩জন ডাক্তারের মধ্যে ১জন ডাক্তার কর্মস্থলে দায়িত্ব পালনরত অবস্থায় থাকলেও আগত শিশু, মহিলা ও পুরুষ রুগীদের সেবা দিতে হিমশিম খাচ্ছেন। ওয়ার্ডে ভর্তিরত রোগীরা সেবিকা ছাড়া দায়িত্বরত চিকিৎসকের দেখা পান নাই বলে রোগীর স্বজনরা জানান। মেডিকেলের ভারপ্রাপ্ত ইনচার্জ ডাক্তার সাইদুর রহমান সিডিউলের সময় শেষে ব্যক্তিগত চেম্বারে আসা রোগীদের সেবা দানে ব্যস্ত সময় পার করছেন বলে অভিযোগ উঠেছে।

ছাতকের হলদিউরা গ্রামের লেচু বেগম ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, হাসপাতালে গিয়ে সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত অপেক্ষা করে ডাক্তার দেখাতে না ফেরে বাড়ী ফিরে যাচ্ছি।
শ’শ রোগী আর ডাক্তার এক জন। অনেক রোগীই চিকিৎসা না নিয়ে ফিরতে হয়েছে বলেও তিনি জানান।
কৈতক হাসপাতালের ভারপ্রাপ্ত ইনচার্জ ডাক্তার সাইদুর রহমান জানান, চিকিৎসক ৩জনের মধ্যে তিনিই কর্মস্থলে আছেন। মেডিকেলের ইনর্চাজ ডাক্তার মোহাম্মদ মোজাহারুল ইসলাম সরকারী ট্রেনিংগে ঢাকায় রয়েছেন। আর ডাক্তার মো. আবু সালেহীন খান বুধ ও বৃস্পতিবার অনুপস্থিত রয়েছেন। ছুটির বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন মৌখিক বা লিখিত ছুটি ছাড়াই ডা. সালেহীন কর্মস্থলে অনুপস্থিত রয়েছেন।

ডাক্তার মো. আবু সালেহীন খানের সাথে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে বলেন, তিনি ছুটিতে রয়েছেন।
মেডিকেলের ইনর্চাজ ডাক্তার মোহাম্মদ মোজাহারুল ইসলামের সাথে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে বলেন, তিনি সরকারী ট্রেনিংয়ে ঢাকায় রয়েছেন।

ডাক্তার মো. আবু সালেহীন খানের ছুটির বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি জানান, বাৎসরিক ২০দিন নৈমিত্তিক ছুটি পাওয়ার কথা থাকলেও ইতিমধ্যে তিনি ২৫দিন ছুটি কাটিয়েছেন। ২৫দিন নৈমিত্তিক ছুটি কাটিয়েছেন মর্মে গেল ৮ মে ২০১৯ ইংরেজি তারিখে তাকে নোটিশ করা হয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *







© All rights reserved © 2017 Nonditosylhet24.com
পোর্টাল বাস্তবায়নে : বিডি আইটি ফ্যাক্টরী লিঃ