শুক্রবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৫:১৫ পূর্বাহ্ন

৪নম্বর ইট দিয়ে সড়ক নির্মাণ! অভিযোগের পরও বন্ধ করছে না ঠিকাদার

৪নম্বর ইট দিয়ে সড়ক নির্মাণ! অভিযোগের পরও বন্ধ করছে না ঠিকাদার

নিউজটি শেয়ার করুন

নিজস্ব প্রতিবেদক : দোয়ারাবাজার উপজেলার শ্রীপুর বাজর পান্ডারগাও রাস্তা নির্মাণে ঠিকাদারের বিরুদ্ধে নিম্নমানের উপকরণ ব্যবহারের অভিযোগ উঠেছে। স্থানীয় চেয়ারম্যান ও এলাকাবাসী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও উপজেলা প্রকৌশলীকে জানানোর পরও নিম্নমানের সামগ্রী ব্যবহার বন্ধ হচ্ছে না। এনমকি প্রশাসনের তদারকির গাফিলতিতে রাস্তা নির্মাণে দুর্নীতি ও অনিয়ম হচ্ছে বলে স্থানীয়রা জানান।

উপজেলা প্রকৌশলীর কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, পান্ডারগাও ইউনিয়নের শ্রীপুর বাজার পান্ডারগাও এর ভেতর দিয়ে রাস্তা পাকাকরনের জন্য এলজিইডি’র হিলিপ প্রকল্পে দরপত্র আহক্ষান করা হয়। এরপর হিলিপ প্রকল্পের আওতায় ৩০ লাখ ৮৮ হাজার টাকা ব্যয়ে ৪শ ২মিটার দীর্ঘ ও প্রায় ৯ মিটার প্রস্থ এ রাস্তা উন্নয়নের কাজ বাস্তবায়নে উপজেলার মিলন কান্তি দে কে ঠিকাদার নিযুক্ত করা হয়। শর্তানুযায়ী সড়কটিতে ছয় ইঞ্চি পুরু বালুর ওপর এক নম্বর ইট বিছানোর কথা ছিল। কিন্তু সড়কটিতে ৪ নম্বর ইট ব্যবহার করা হচ্ছে। এই ইটগুলো স্থানীয়রা হাত দিয়েই ভেঙ্গে ফেলে। এলাকাবাসীর কাছ থেকে অভিযোগ পেয়ে পান্ডারগাও ইউনিয়ন চেয়ারম্যান ফারুক আহমদ সোমবার সরেজমিনে পরিদর্শন করেন।

অভিযোগের সত্যতা পাওয়ায় সে সময় কাজ বন্ধ করে দেওয়ার জন্য উপজেলা প্রকৌশলী ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে মোবাইল ফোনে জানান। এমনকি উপজেলা পরিষদের চেয়াম্যান ডা. আবদুর রহিমও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে বিষয়টি অবহিত করেন। কিন্তু কোনো কিছুতেই টনক নড়ছে না উপজেলার দায়িত্বশীল কর্মকর্তাদের। এছাড়াও মঙ্গলবার সকালে স্থানীয় চেয়ারম্যান ও বাজার ব্যবসায়ীরা রাস্তা নির্মাণের নিম্নমানের সামগ্রীগুলো সরিয়ে নেওয়ার জন্য পুনরায় শ্রীপুর বাজারে যান। সেখানে প্রশাসনের তদারকির কোনো লোককে পাওয়া যায়নি। সরেজমিনে ঠিকাদারের নিযুক্ত কয়েকজন শ্রমিককে কর্মরত অবস্থায় পাওয়া যায়। প্রকল্পে ৪ নম্বর ইট ব্যবহার

করা হচ্ছে, নিম্নমানের বালু ও পাথর ব্যবহার যা নিয়মবহির্ভূত এবং একটি অপরাধ বলে স্থানীয়রা এর প্রতিবাদ করে আসছেন। তবে ঠিকাদার স্থানীয় রাজনৈতিক ভাবে প্রভাব কাটিয়ে জোরপূর্বক এমন দুর্নীতি ও অনিয়ম করছেন বলে স্থানীয়রা জানান। স্থানীয় ব্যবসায়ী জহুর উদ্দিন জানান, দুর্নীতির ও একটা সীমা থাকা প্রয়োজন। ঠিকাদার শ্রীপুর বাজার রাস্তা নির্মানে যে সামগ্রী ব্যবহার করছে তা অত্যন্ত নিম্নমানের।

তবে এই রাস্তা নির্মানের মাসেকের মধ্যে ভেঙ্গে যেতে পারে বলে তিনি জানান। জাকারিয়া হোসেন জানান, আমরা এলাকাবাসী রাস্তা নির্মাণের নিম্নমানের সামগ্রী সরিয়ে নেওয়ার জন্য বার বার অভিযোগ করছি। অভিযোগ করার পরও কোনো কাজ হচ্ছে না। ঠিকাদার প্রভাব কাটিয়ে নিম্নমানের সামগ্রী দিয়েই রাস্তার কাজ করে যাচ্ছে। কলেজ পড়–য়া ছাত্র সাগর তালুকদার জানান, দোয়ারাবাজার উপজেলা ও ছাতক উপজেলায় চলাচলের একমাত্র রাস্তাই শ্রীপুর বাজারের রাস্তা। এতদিন এই রাস্তায় কাঁদা ছিল। যার ফলে খুব কষ্ট করে চলাচল করেছে এলাকাবাসী। এখন যেও সরকারের বরাদ্দ এসেছে তা ভাগবাটোয়ারা করে খাওয়ার জন্য নিম্নমানের সামগ্রী ব্যবহার করা হচ্ছে। এই বিষয়ে কর্তৃপক্ষের সুদৃষ্টি কামনা করেন তিনি।

পান্ডারগাও ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ফারুক আহমদ জানান, এলাকাবাসীর অভিযোগ পেয়ে তিনি সরজমিন গিয়ে ঘটনার সত্যতা পান। পরে বিষয়টি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও উপজেলা প্রকৌশলীকে বিষয়টি অবহিত করেন। আজ তিন দিন পেরিয়ে গেলেও কার্যকরী কোনো ভুমিকা দেখতে পাওয়া যায়নি বলে তিনি জানান। এই বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কাজী মুহয়া মমতাজ জানান, ইউনিয়ন চেয়ারম্যান আমাকে বিষয়টি জানান। পরে উপজেলা প্রকৌশলীকে নির্দেশ দিয়েছি কাজ বন্ধ রাখার জন্য। তিনি আরো জানান, সরকারের নিয়মবর্হিভূত কোনো কাজ করলে কাউকে ছাড় দেয়া হবে না। জনগনের স্বার্থে নিম্নমানের সামগ্রী সরিয়ে নেওয়ার নির্দেশ দেওয়া আছে।

 

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *







© All rights reserved © 2017 Nonditosylhet24.com
পোর্টাল বাস্তবায়নে : বিডি আইটি ফ্যাক্টরী লিঃ