মঙ্গলবার, ১৫ অক্টোবর ২০১৯, ০৩:১৮ অপরাহ্ন

দক্ষিণ সুরমায় জুয়ার আখড়া: বেপরোয়া লাল গ্যাং 

দক্ষিণ সুরমায় জুয়ার আখড়া: বেপরোয়া লাল গ্যাং 

নিউজটি শেয়ার করুন

বিশেষ প্রতিবেদন :সিলেটের দক্ষিণ সুরমার নাজিরবাজারের আলোচিত ‘লাল’। লাল মিয়া বা লাল ভাই নামে চিনে সবাই। তীর শিলং তথা জুয়ার বোর্ড বললেই ‘লালের’ অঙ্গুলি ইশারায় চলে সব।ওয়ার্কশপের কর্মচারী থেকে হঠাৎ করে ‘যুবলীগের’ প্রলেপ গায়ে মেখে রাতারাতি বড়মাপের আওয়ামী লীগের নেতাদের সান্নিধ্যে যাওয়ার সুযোগ পাওয়া লাল এখন বেপরোয়া।

তাকে বিভিন্ন সময় আওয়ামী লীগ, যুবলীগের পদধারী নেতাদের সাথে চলাফেরা করতে দেখা যায়। সম্প্রতি স্থানীয় সংসদ সদস্য আওয়ামী লীগ নেতা মাহমুদ উস-সামাদ চৌধুরী কয়েসের সাথে তার ছবিও রয়েছে।ছবিটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে ।
লাল এখন ‘লালে লাল’ অবস্থায়। একদিকে জুয়ার বোর্ডের রমরমা কালো দ্বান্ধা অপরদিকে নেতাদের ছত্রছায়ায় বেপরোয়া।লালাবাজার ইউপি যুবলীগের এক নেতার ডান হাত এই লাল। ৩য় পর্বে থাকছে ওই নেতা নিয়ে প্রতিবেদন।২৩ সেপ্টেম্বর নাজিরবাজারের বহুল আলোচিত ছয় ভাই রেস্টুরেন্টে অভিযান চালিয়ে ৪ জুয়াড়িসহ দক্ষিণ সুরমা থেকে মোট ৩৭ জুয়াড়িকে আটক করে র‌্যাব। এসব মুখোশধারী, নামধারী যত্তসব নেতা আর বড় ভাইরা আছেন। সবার মুখোশ উন্মোচন করতেই আপনাদের প্রিয় অনলাইন পোর্টাল নন্দিত সিলেটের এই বিশেষ আয়োজন।

আলোচিত সেই ছয় ভাই রেস্টুরেন্টের জুয়ার আসরে অতিষ্ট স্থানীয়রা। জুয়াড়িদের বেশামাল আড্ডাবাজি, জুয়ার পাশাপাশি বসে মিনি মদের আসরও। এসব অপকর্ম সহ্য করতে না পেরে ক্ষুব্ধ হয়ে ফুঁসে উঠেছেন স্থানীয় জনতা। তারা গত বৃহস্পতিবার সিলেট পুলিশ কমিশনারের হাতে শতাধিক এলাকাবাসী স্বাক্ষরিত একটি অভিযোগ দাখিল করা হয়। এলাকাবাসীরা এ ধরনের অসামাজিক কার্যকলাপ বন্ধে প্রশাসনের সহযোগিতা চেয়েছেন।অভিযোগে উল্লেখ করা হয়, অত্র এলাকার ছয় ভাই রেষ্টুরেন্টের স্বত্ত্বাধিকারী কালিরগাঁও গ্রামের লাল মিয়া ও তার আপন ছোট ভাই ছুনু মিয়ার নেতৃত্বে রেস্টুরেন্টে দিন-রাত তীর খেলা, মদ, গাঁজা ও বিভিন্ন ধরনের মাদক সেবন করা হয়। রেষ্টুরেন্টে সামনে রয়েছে অনেক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। স্কুল, কলেজ ও মাদ্রাসা শিক্ষার্থীরা রেস্টুরেন্টের সামন দিয়ে যাওয়াত করে। প্রায় সময় মাদকসেবীরা শিক্ষার্থীদের ওত্যক্ত করে থাকে।

এলাকায় লাল মিয়া ও ছুনু মিয়ার নামে অনেক অভিযোগ রয়েছে। প্রায় সময় এলাকায় ত্রাসে সৃষ্টি করে যাচ্ছে তারা। আইন কানুনের তোয়াক্কা না করে অবাধে চালিয়ে যাচ্ছে তাদের সব অপকর্ম। লাল মিয়া ও ছুনু মিয়াগংদের বিরুদ্ধে অত্র এলাকার মশাহিদ আলী, এমরান ও মামুন প্রতিবাদ করায় তাদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করে হয়রানি করা হচ্ছে। এ রেষ্টুরেন্ট থেকে র‌্যাব-৯ অভিযানে ২৬ জন জুয়ারীকে আটক করে। অভিযানে চুনু মিয়াও আটক হন। দুই একদিন বন্ধ থাকলেও পুণরায় সেখানে মদ, জোয়া সহ বিভিন্ন অসামাজিক কার্যকলাপ আবারো চালু হয়ে যায়। এসব অসামাজিক কার্যকলাপ বন্ধে ও এ ধরনের অপরাধমূলক কার্যকলাপের সাথে জড়িতদের আইনের আওতায় এনে এলাকায় শান্তিশৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনতে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন এলাকাবাসী।

 

 

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *







© All rights reserved © 2017 Nonditosylhet24.com
পোর্টাল বাস্তবায়নে : বিডি আইটি ফ্যাক্টরী লিঃ